Madhyamik

হ্রদ অঞ্চলের কৃষিতে উন্নতির কারণ

হ্রদ অঞ্চলের কৃষিতে উন্নতির কারণ :-  (১) তরঙ্গায়িত ও বিস্তীর্ণ সমতলভূমি, (২) নাতিশীতোষ্ণ ও আর্দ্র জলবায়ু, (৩) পরিমিত বৃষ্টিপাত ( ৫০ থেকে ৬০ সে.মি.), (৪) উর্বর কৃষ্ণ মৃত্তিকা এবং (৫) উন্নত যান্ত্রিক কৃষি ব্যবস্থার জন্য হ্রদ অঞ্চলে কৃষির বিশেষত ভুট্টা চাষের উল্লেখযোগ্য বিকাশ ঘটেছে । হ্রদ অঞ্চলের দক্ষিণাংশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তথা পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ভুট্টা উৎপাদক অঞ্চল । একে হ্রদ অঞ্চলের ভুট্টা বলয় বলে । এই ভুট্টা প্রধানত পশুখাদ্যের জন্য ব্যবহৃত হয় । হ্রদ অঞ্চলে উত্তরাংশের তৃণভূমিতে পশু খাদ্যের জন্য ‘হে’ এবং অন্যান্য ঘাষের চাষ করা হয় । হ্রদ অঞ্চলের অন্যান্য ফসল হল— গম, যব, রাই, ওট, সয়াবিন

পশ্চিমবঙ্গের পার্বত্য অঞ্চলের জলবায়ুর বৈশিষ্ট্য

(১) একমাত্র শিলিগুড়ি মহকুমা বাদে পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং জেলার বাকি অংশ হিমালয়ের পার্বত্য অঞ্চলের অন্তর্গত ।

(২) বেশি উচ্চতায় অবস্থিত হওয়ার ফলে দার্জিলিং জেলার পার্বত্য অংশে পশ্চিমবঙ্গের সমতলভূমির তুলনায় তাপমাত্রা অনেক কম । ফলে গ্রীষ্মকালে পশ্চিমবঙ্গের অন্যান্য অঞ্চলের লোকেরা যখন প্রচন্ড গরমে হাঁসফাঁস  করে, তখন দার্জিলিং পাহাড়ের লোকেরা শীতের হাত থেকে বাঁচতে গরম পোশাক পরে ।

পশ্চিমবঙ্গের ঋতুচক্র

পশ্চিমবঙ্গের জলবায়ুকে মোটামুটি চারটি প্রধান ঋতুতে ভাগ করা যায় । যেমন— (১) শুষ্ক গ্রীষ্মকাল,  (২) আর্দ্র গ্রীষ্মকাল, (৩) শরৎকাল ও (৪) শীতকাল । এছাড়া পশ্চিমবঙ্গের বসন্তকাল ও হেমন্তকাল স্বল্পস্থায়ী । তাই পশ্চিমবঙ্গের জলবায়ুর ক্ষেত্রে এদের বিশেষ কোন প্রভাব নেই । বছরের বিভিন্ন ঋতুতে পশ্চিমবঙ্গের জলবায়ুতে নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্য দেখা যায় ।

দক্ষিণবঙ্গ এবং সুন্দরবনের উল্লেখযোগ্য নদনদী

মাতলা, গোসাবা, বিদ্যাধরী, পিয়ালী, ইছামতী, কালিন্দী, রায়মঙ্গল, সপ্তমুখী, বড়তলা, জামিরা প্রভৃতি দক্ষিণবঙ্গ ও সুন্দরবনের উল্লেখযোগ্য নদনদী । প্রত্যেকটি নদীই দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হয়ে বঙ্গোপসাগরে পড়েছে । ইছামতী, মাতলা, হাড়িয়াডাঙা, সপ্তমুখি, জামিরা প্রভৃতি নদীগুলো বঙ্গোপসাগরের জোয়ারের জলে পুষ্ট, তাই এদের জল লবণাক্ত । জোয়ারের সময় এই নদীগুলোতে নৌকা চালানো যায় ।

***

 

পূর্ব হিমালয় থেকে উৎপন্ন উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন নদনদী

পশ্চিমবঙ্গের উত্তর দিকের নদীগুলির মধ্যে (১) মেচি, (২) বালাসন, (৩) মহানন্দা, (৪) তিস্তা, (৫) জলঢাকা, (৬) তোর্সা, (৭) রায়ডাক, (৮) সঙ্কোশ, (৯) কালজানি প্রভৃতি প্রধান । মহানন্দা ছাড়া এইসব নদী উত্তরের হিমালয় পর্বত থেকে উৎপন্ন হয়ে দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি ও কোচবিহার জেলার উপর দিয়ে দক্ষিণ-পূর্ব দিকে প্রবাহিত হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে । তিস্তা উত্তরবঙ্গের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নদী । হিমবাহ থেকে উৎপন্ন হওয়ায় তিস্তা ও জলঢাকা নদী দুটি অত্যন্ত খরস্রোতা এবং এইসব নদীতে সারাবছরই জল থাকে । উত্তরবঙ্গের নদীখাতগুলি পলি, বালি ও নুড়ি প্রভৃতি জমে উঁচু হয়ে যাওয়ায় বর্ষার সময় এইসব নদীতে কখনও কখনও বন্যা দেখা যায় । এই নদ

ভাগীরথী-হুগলী নদীর পশ্চিম দিক দিয়ে প্রবাহিত নদী সমুহ

ভাগীরথী-হুগলী নদীর পশ্চিম দিকের নদী গুলোর মধ্যে (১) ময়ূরাক্ষী, (২) অজয়, (৩) দামোদর, (৪) দ্বারকেশ্বর, (৫) শিলাবতী ( শিলাই), (৬) কংসাবতি (কাঁসাই), (৭) রূপনারায়ন, (৮) হলদি, (৯) কেলেঘাই, (১০) সুবর্ণরেখা প্রভৃতি নদী উল্লেখযোগ্য । এর মধ্যে অজয়, দামোদর ও ময়ূরাক্ষী নদী ঝাড়খন্ড রাজ্যের ছোটনাগপুর মালভূমি থেকে এবং অন্যান্য নদীগুলো পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিম দিকের মালভূমি থেকে উৎপন্ন হয়েছে । পশ্চিমের মালভূমি অঞ্চলে উৎপন্ন হয়ে শিলাবতী ও দারকেশ্বর নদী দুটি মিলিত হয়ে রূপনারায়ণ নামে কিছু দূর প্রবাহিত হয়ে অবশেষে গেঁওখালির কাছে হুগলী নদীতে পতিত হয়েছে । এছাড়া কেলেঘাই ও কংসাবতী নদী যুক্ত হয়ে হলদি নদীর সৃষ্টি করেছে ।