History

মুসলিমদের আগমনে সংঘাত ও সমন্বয়ী প্রক্রিয়া

মুসলিমদের আগমনে সংঘাত [Conflict at the advent of Muslims] :-মুসলমানরা ভারতে একটি সম্পূর্ণ নতুন ও উন্নত ধর্ম চেতনা ও জীবনাদর্শ নিয়ে এসেছিল । দুটি সম উন্নত মানের ধর্ম ও সংস্কৃতি যখন মুখোমুখি এসে দাঁড়ায়, তখন কাউই কাউকে পুরোপুরি গ্রাস করতে পারে না । প্রাথমিক সংঘাত অনিবার্য । এ ক্ষেত্রে তাই হয়েছিল । হিন্দু-মুসলমান পরস্পর পরস্পরকে বিধর্মীর দৃষ্টিতে দেখত ।  হিন্দুর কাছে মুসলমানরা ছিল অত্যাচারী, লুণ্ঠনকারী ও হিন্দু মন্দিরধ্বংসকারী ম্লেচ্ছ । মুসলিম শাসকেরা যেভাবে হিন্দু রাজাদের ক্ষমতাচ্যুত করে রাজনৈতিক ক্ষমতা দখল করেছিল এবং প্রশাসনে নিজেদের লোক বসিয়ে ছিল, সংস্কৃত ভাষা ও অন্যান

মুঘল সাম্রাজ্যের পতনের কারণ

মুঘল সাম্রাজ্যের পতনের কারণ [Causes of the Downfall of the Mughal Empire] :- ঔরঙ্গজেবের আমল থেকেই মুঘল সাম্রাজ্যের পতনের লক্ষণগুলি স্পষ্ট হয়ে উঠেছিল । ঔরঙ্গজেব যতদিন বেঁচে ছিলেন ততদিন তাঁর ব্যক্তিগত যোগ্যতার কারণে সাম্রাজ্যের বিশালায়তন অব্যাহত ছিল । কিন্তু তাঁর মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গেই মুঘল সাম্রাজ্যের পতন ঘনিভূত হয় । মুঘল সাম্রাজ্যের পতনের কারণগুলি হল

জায়গিরদারি সংকট ও আঞ্চলিক বিদ্রোহ

জায়গিরদারি সংকট [Complications of Jaigirdar]:- ঔরঙ্গজেবের আমলে মুঘল সাম্রাজ্যের সর্বাধিক বিস্তৃতি ঘটলেও তাঁর সময় থেকেই পতনের প্রক্রিয়া সূচিত হয় । জায়গিরদারি সংকট ছিল তারই বহিঃপ্রকাশ । ঔরঙ্গজেবের মৃত্যুর পর এই সংকট তীব্রতর হয়েছিল । ঔরঙ্গজেবের আমলে একটানা যুদ্ধ ও বিশেষত তাঁর ভ্রান্ত দাক্ষিণাত্য নীতি এই সংকটের মূল কারণ ছিল । শুধু যুদ্ধের খরচ নয়, শাসক শ্রেণীর বিলাস বৈভবের জন্যও প্রচুর অর্থব্যয় হত । ব্যয় বাড়লেও আয় বাড়েনি । বরং শাসক শ্রেণীর আয় কমেছিল । আসলে যুদ্ধের প্রয়োজনে ঔরঙ্গজেবকে দরাজ হাতে মনসব বাড়াতে হয় । মনসবদারদের সংখ্যা অবশ্য শাহজানের আমল থেকেই বাড়ছিল । জাহাঙ্গীরের সময়ে

মনসবদারি প্রথা ও রাজস্ব ব্যবস্থা

মনসবদারি প্রথা [Mansabdari System]:- মুঘল সাম্রাজ্যের ভিত্তি ছিল সামরিক শাসন । জনগণের সেখানে কোন ভূমিকা ছিল না । জনসমর্থন নয়, ভীতিই ছিল এই শাসন ব্যবস্থার প্রধান বৈশিষ্ট্য; যদিও আগেই বলা হয়েছিল যে, প্রজা কল্যাণ ছিল এর মুখ্য আদর্শ । শাসনব্যবস্থার শীর্ষে থাকতেন সম্রাট । কিন্তু তাঁর শক্তির প্রধান উৎস ছিল অভিজাত সম্প্রদায় । এরাই ছিল শাসক শ্রেণী । মুঘল রাষ্ট্র সামরিক শক্তির উপর নির্ভরশীল হলেও এর কোন নিজস্ব সেনাবাহিনী ছিল না । মুঘল সম্রাট সামরিক শক্তির জন্য মনসবদের উপর নির্ভরশীল ছিল ।  ‘মনসব’ কথাটির অর্থ হল পদ । কোন নির্দিষ্ট পদ বা মনসবের অধিকারকে বলা হত মনসবদার । মনসবদাররা মূলত সামরিক দায়দায়িত্ব