WB Class IX

মুঘল যুগে পর্তুগিজ বণিকদের কার্যকলাপ

পর্তুগিজ বণিকদের কার্যকলাপ:- ১৪৯৭-৯৮ খ্রীষ্টাব্দে যখন পর্তুগিজ নাবিক ভাস্কো-দা-গামা মালাবার উপকূলে কালিকট বন্দরে অবতরণ করেন, তখন সেই ঘটনার গুরুত্ব ও তাৎপর্য অনুধাবন করার ক্ষমতা ভারতবাসীর ছিল না । ভাস্কো-দা-গামা মালাবার উপকূলে কালিকট বন্দরে অবতরণ করার পর থেকেই ইউরোপের সঙ্গে ভারতের সরাসরি সামুদ্রিক পথে যোগাযোগের সূত্রপাত হয় । এর আগে পারস্য উপসাগর ও লোহিত সাগর হয়ে কিছুটা জলপথ ও কিছুটা স্থলপথ ধরে ভারতের সঙ্গে ইউরোপের বাণিজ্য চলত । কিন্তু ১৪৫৩ খ্রীষ্টাব্দে বাইজানটাইন সাম্রাজ্যের পতনের ফলে এই বাণিজ্য পথ ব্যাহত হয় । এই অবস্থায় ভাস্কো-দা-গামার আগমন ভারত-ইউরোপের বাণিজ্যে এক যুগান্ত

মুঘল যুগে ভারতের বহির্বাণিজ্য

 বহির্বাণিজ্য:- বহির্বিশ্বে ভারতের সঙ্গে বিভিন্ন দেশের বাণিজ্যিক লেনদেন ছিল । বিদেশী বণিকরা যেমন ব্যবসার জন্য ভারতে আসত, তেমনই ভারতীয় বণিকেরা, বিশেষত গুজরাটিরা বহির্বাণিজ্যে অংশগ্রহণ করত । ভারত থেকে বস্ত্র, গোল মরিচ, নীল ও অন্যান্য দ্রব্যসামগ্রী রপ্তানি হত । ভারতে আমদানি হত বহুমূল্য ধনরত্ন, কাঁচা রেশম, ঘোড়া, হাতির দাঁত, প্রবাল, সুগন্ধি দ্রব্য ইত্যাদি । উত্তর-পশ্চিম সীমান্তে দুটি স্থলপথ ধরে বাণিজ্য চলত । একটি পথ ছিল লাহোর থেকে কাবুল পর্যন্ত, অন্যটি ছিল মুলতান থেকে কান্দাহার পর্যন্ত । তবে দুটি পথেই নিরাপত্তার অভাব ছিল বলে ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হত । জলপথে ভারতের উভয় উপকূলে অসংখ্য বন্দর ছিল । এগু

মুঘল যুগে ভারতের আভ্যন্তরীণ বাণিজ্য

আভ্যন্তরীণ বাণিজ্য :-  মুঘল আমলে দেশে শান্তি ও শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠিত হওয়ায়, রাস্তাঘাট ও সরাইখানা নির্মাণ এবং পরিবহণ ব্যবস্থার উন্নতির ফলে আভ্যন্তরীণ ব্যবসাবাণিজ্যের প্রসার ঘটেছিল । তা ছাড়া উন্নত মুদ্রানীতি এবং নগদে বেতন প্রদানের ফলে একদিকে যেমন এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায়  টাকা পাঠান সহজ ছিল, অন্যদিকে তেমনই স্বল্প সুদে ঋণদানের ব্যবস্থাও ব্যবসাবাণিজ্যের প্রসারে সহায়ক হয়েছিল । এই সময় বিমা ব্যবস্থা চালু থাকার ফলে ব্যবসায়ীরা উপকৃত হত । মুঘল আমলে ব্যবসায়ীদের মধ্যে নানা স্তরবিন্যাস ছিল । পাইকারি ব্যবসায়ীদের বলা হত শেঠ বা বাহারা । আর খুচরো ব্যবসায়ীদের বলা হত বণিক বা ব্যাপারী । এছাড়া বনজারা নামে আ

মুঘল যুগে ভারতের অকৃষি নির্ভর শিল্প

অকৃষি শিল্প [Non-Agricultural Industry]:- অকৃষি শিল্প উৎপাদনের একটা বড় অংশ ছিল বিলাসদ্রব্য । সাধারণ মানুষের চাহিদা কম ছিল । বিলাসদ্রব্য নির্মাণের জন্য সরকারি কারখানা বা কর্মশালা ছিল । তবু তার বেশির ভাগ তৈরি হত স্বাধীন কারিগর ও শিল্পীর বাড়িতে ।

(১) রান্নাবান্না ও ঘর গেরস্থালীর কাজে লোহা ও তামার তৈরি জিনিসপত্র ব্যবহৃত হত । এই সব জিনিস ব্যবহার করত সম্রাট ও অভিজাত শ্রেণীর মানুষ । অবশ্য সাধারন মানুষ ধাতুর তৈরি ছোটোখাটো জিনিস ব্যবহার করত । লোহার তৈরি জিনিসের মধ্যে কাটারি ও অস্ত্রশস্ত্রের চাহিদা ছিল ।

মুঘল যুগে ভারতের কৃষি নির্ভর শিল্প

মুঘল যুগে বিভিন্ন দ্রব্য রপ্তানির ফলে ভারতে প্রচুর অর্থাগম হত । বিদেশ থেকে আমদানি করার মতো বিশেষ কিছু ছিল না । ফলে বিদেশের বহু মূল্যবান ধনরত্ন ভারতে এসে জমা হত । এই অবস্থা থেকে অনেকে মনে করেন যে, ভারত তখন শিল্পে খুব অগ্রগণ্য ছিল । আধুনিক ঐতিহাসিকগণ এই বক্তব্যের সঙ্গে ভিন্ন মত পোষণ করেন । এঁদের মতে, ভারতে উৎপাদন ব্যবস্থা ছিল সাবেকি ধরনের । প্রযুক্তি বিদ্যা ছিল মান্ধাতা আমলের । এই বিষয়ে ভারত তখন চিন বা ইংল্যান্ডের থেকে অনেক পিছিয়ে ছিল । খনিজ দ্রব্য ব্যবহারের পদ্ধতিও ভারতীয়দের অজানা ছিল । শিল্প উৎপাদন বাড়েনি । বরং তা এক জায়গায় স্থিতিশীল হয়ে গিয়েছিল ।

সুলতানি ও মুঘল আমলের চিত্রকলা

সুলতানি আমলের চিত্রকলা [Art during the Sultanate Period]:- একটি সময় ছিল যখন মনে করা হত সুলতানি আমলে চিত্রকলার কোনো চর্চা হত না । ইসলামে ছবি আঁকা নিষিদ্ধ ছিল । বর্তমানে এই ধারণা ভ্রান্ত বলে প্রমাণিত হয়েছে ।  আসলে ভারতে ইসলামের আর্বিভাবের ফলে যে সমন্বয়ী প্রক্রিয়ার সূত্রপাত হয়েছিল, তা ভারতের সংস্কৃতিকে গভীরভাবে প্রভাবিত করেছিল । এই সময়ের কয়েকজন সুলতান ও হিন্দু প্রধান শিল্প ও সংস্কৃতির পৃষ্ঠপোষক ছিলেন । ফলে বিভিন্ন অঞ্চলে স্থানীয় শিল্পরীতির উদ্ভব হয়েছিল । তবে দুর্ভাগ্যের বিষয়, এই পর্যায়ের চিত্রশিল্পের পর্যাপ্ত কোনো নিদর্শন আমাদের হাতে নেই । যাই হোক, সুলতানি আমলে পারস্য শিল্পরী