ছোটো প্রশ্ন ও উত্তর:( পঞ্চম অধ্যায় )

২০. ছোটো প্রশ্ন ও উত্তর  ( Short questions and answers) -

 

প্রশ্ন:- মৌর্যযুগে বিদেশে ভারতের প্রধান রপ্তানি দ্রব্য কী কী ছিল  ?

উত্তর:- মৌর্যযুগে বিদেশে ভারতের প্রধান রপ্তানি দ্রব্য ছিল (১) বিভিন্ন রকম মসলা এবং (২) মসলিন বস্ত্র

 

প্রশ্ন:- মৌর্যযুগে প্রধান অভ্যন্তরীণ জলপথ কী কী ছিল  ?

উত্তর:- গঙ্গা, যমুনা, গোদাবরী, ও সিন্ধুনদ ছিল মৌর্যযুগের প্রধান অভ্যন্তরীণ জলপথ ।

 

প্রশ্ন:- মৌর্যযুগে স্থল নিয়ামক কাকে বলা হত ?

উত্তর:- স্থলপথে বণিকদের পথ দেখাবার জন্য এক শ্রেণীর সরকারি কর্মচারীকে মৌর্যযুগে স্থল নিয়ামক বলা হত  ।

 

প্রশ্ন:- মৌর্যোত্তর যুগের কোন শিলালিপি থেকে তৎকালীন ভারতের বাণিজ্য-নিগম ও ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থার কথা জানা যায় ?

উত্তর:- নাসিক গুহালিপি থেকে মৌর্যোত্তর যুগের তৎকালীন ভারতের বাণিজ্য-নিগম ও ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থার কথা জানা যায় ।

 

প্রশ্ন:- প্রাচীন ভারতের কোন যুগের সমাজব্যবস্থায় অস্পৃশ্যদের আবির্ভাব ঘটেছিল ?

উত্তর:- প্রাচীন ভারতের গুপ্তযুগের সমাজব্যবস্থায় অস্পৃশ্যদের আবির্ভাব ঘটেছিল ।

 

প্রশ্ন:- মৌর্যযুগে হিন্দু ধর্ম গ্রহন করেছিল এমন অনার্য জাতিদের মনুসংহিতায় কি বলা হয়েছে ?

উত্তর:- মৌর্যযুগে হিন্দু ধর্ম গ্রহন করেছিল এমন অনার্য জাতিদের মনুসংহিতায় ব্রাত্য ক্ষত্রিয় বলা হয়েছে ।

 

প্রশ্ন:- প্রাচীনকালে মধ্য এশিয়া থেকে ভারতে আসা শক,হুন,কুষাণ, প্রভৃতি জাতি কোন শ্রেণির মানুষ ছিল ?

উত্তর:- প্রাচীনকালে মধ্য এশিয়া থেকে ভারতে আসা শক,হুন,কুষাণ, প্রভৃতি জাতি ইউ-চি নামে যাযাবর শ্রেণির মানুষ ছিল  ।

 

প্রশ্ন:- পরবর্তী বৈদিকযুগের পরে ভারতীয় সমাজে নারীর মর্যাদা কেমন ছিল ?

উত্তর:- পরবর্তী বৈদিকযুগের পর থেকে ভারতীয় সমাজে নারীর মর্যাদা ক্রমশ কমতে থাকে ।

 

প্রশ্ন:- হিন্দু সমাজে বিধবা-বিবাহ, সতীদাহ প্রভৃতি কু-প্রথা কোন সময় থেকে চালু হয় ?

উত্তর:- হিন্দু সমাজে বিধবা-বিবাহ, সতীদাহ প্রভৃতি কু-প্রথা পরবর্তী বৈদিকযুগের পর থেকে চালু হয় ।

 

প্রশ্ন:- মৌর্যযুগে ভারতে বস্ত্রশিল্পের প্রধান কেন্দ্রগুলি কী কী ছিল ?

উত্তর:- মৌর্যযুগে ভারতে বস্ত্রশিল্পের প্রধান কেন্দ্রগুলির নাম ছিল বঙ্গ, কাশী , কঙ্কোন, ও মহীশূর  ।

 

প্রশ্ন:- গুপ্তযুগে ভারতবর্ষের বিভিন্ন শিল্পের মধ্যে কোন শিল্প সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল ?

উত্তর:- গুপ্তযুগে ভারতবর্ষের বস্ত্রশিল্প সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল ।

 

প্রশ্ন:- অশ্বঘোষ কে ছিলেন ?

উত্তর:- অশ্বঘোষ ছিলেন কুষাণযুগের প্রখ্যাত নাট্যকার ।

 

প্রশ্ন:- কোন রাজবংশের আমলে গান্ধারশিল্পের বিকাশ ঘটেছিল  ?

উত্তর:- কুষাণ রাজবংশের আমলে গান্ধারশিল্পের বিকাশ ঘটেছিল ।

 

প্রশ্ন:- কোন যুগে প্রধানত অজন্তার গুহাচিত্র অঙ্কিত হয়েছিল  ?

উত্তর:- গুপ্তযুগে প্রধানত অজন্তার গুহাচিত্র অঙ্কিত হয়েছিল ।

 

প্রশ্ন:- বিক্রমশিলা মহাবিহার কে প্রতিষ্ঠা করেন  ?

উত্তর:- ধর্মপাল বিক্রমশিলা মহাবিহার  প্রতিষ্ঠা করেন ।

 

প্রশ্ন:- হরিচরিত কাব্য কে রচনা করেন ?

উত্তর:- চতুর্ভুজ হরিচরিত কাব্য রচনা করেন ।

 

প্রশ্ন:- অতীশ দীপঙ্কর কে ছিলেন ?

উত্তর:- অতীশ দীপঙ্কর ছিলেন একজন জগৎবিখ্যাত পন্ডিত , বিক্রমশীলা মহাবিহারের অধ্যক্ষ এবং বজ্রযান সাধন গ্রন্থের রচয়িতা ।

 

প্রশ্ন:-  গুপ্তযুগের একজন পদার্থবিজ্ঞানী ও গণিতবিদের নাম কী ?

উত্তর:- গুপ্তযুগের একজন পদার্থবিজ্ঞানী ও গণিতবিদের নাম হল আর্যভট্ট ।

 

প্রশ্ন:- দান সাগর ও অদ্ভুত সাগর গ্রন্থের রচয়িতা কে ?

উত্তর:- দান সাগর ও অদ্ভুত সাগর গ্রন্থের রচয়িতা হল সেন রাজা বল্লালসেন ।

 

প্রশ্ন:- দান সাগর ও অদ্ভুত সাগর গ্রন্থ কোন যুগে রচিত হয়েছিল ?

উত্তর:- দান সাগর ও অদ্ভুত সাগর গ্রন্থ সেনযুগে কোন যুগে রচিত হয়েছিল ।

 

প্রশ্ন:- মৃচ্ছকটিক কে রচনা করেন ?

উত্তর:- কুষাণযুগের নাট্যকার শূদ্রক মৃচ্ছকটিক রচনা করেন ।

 

প্রশ্ন:-  স্বপ্নবাসবদত্তা নাটকটি কে রচনা করেন ?

উত্তর:- স্বপ্নবাসবদত্তা নাটকটি ভাস রচনা করেন ।

 

প্রশ্ন:-  কাব্যচর্চার জন্য সমুদ্রগুপ্ত কী উপাধিতে ভূষিত হয়েছিল  ?

উত্তর:- কাব্যচর্চার জন্য সমুদ্রগুপ্ত কবিরাজ উপাধিতে ভূষিত হয়েছিল ।

 

প্রশ্ন:- গুপ্তযুগের একজন বৌদ্ধ দার্শনিকের নাম কী ?

উত্তর:- গুপ্তযুগের একজন বৌদ্ধ দার্শনিকের নাম হল বসুবন্ধু ।

 

প্রশ্ন:-কোন ভাষা থেকে বাংলা উৎপত্তি হয় ?

উত্তর:- পালযুগের মাগধী অপভ্রংশ ভাষা থেকে বাংলা উৎপত্তি হয় ।

 

প্রশ্ন:- লক্ষ্মণসেনের সভাকবির নাম কী  ?

উত্তর:- লক্ষ্মণসেনের সভাকবির নাম জয়দেব ।

 

প্রশ্ন:- গীতগোবিন্দ কে রচনা করেন ?

উত্তর:- লক্ষ্মণসেনের সভাকবির নাম জয়দেব গীতগোবিন্দ রচনা করেন ।

 

প্রশ্ন:- পালযুগে বৌদ্ধধর্মের কোন মতবাদ বেশি গুরুত্ব লাভ করেছিল ?

উত্তর:- পালযুগে বৌদ্ধধর্মের সহজযান বা সহজিয়া মতবাদ বেশি গুরুত্ব লাভ করেছিল ।

 

প্রশ্ন:- পাল স্থাপত্য শিল্পকলার শ্রেষ্ঠ নিদর্শন কী ?

উত্তর:- পাল স্থাপত্য শিল্পকলার শ্রেষ্ঠ নিদর্শন হল মগধে প্রতিষ্ঠিত বিক্রমশীলা মহাবিহার ।

 

প্রশ্ন:- পাল যুগের একজন ভাস্করের নাম লেখো ?

উত্তর:- পাল যুগের একজন ভাস্করের নাম ধীমান ।

 

প্রশ্ন:- কোন পল্লব রাজার আমলে মহাবলীপুরমের রথমন্দিরগুলি নির্মিত হয়েছিল  ?

উত্তর:- পল্লব রাজা নরসিংহবর্মনের আমলে মহাবলীপুরমের রথমন্দিরগুলি নির্মিত হয়েছিল ।

 

প্রশ্ন:- রাষ্ট্রকুট আমলে নির্মিত একটি মন্দিরের নাম লেখো ?

উত্তর:- রাষ্ট্রকুট আমলে নির্মিত একটি মন্দিরের নাম ইলোরার কৈলাসনাথ মন্দির ।

 

প্রশ্ন:-  বিক্রমাঙ্কদেবচরিত গ্রন্থের রচয়িতা কে ?

উত্তর:- বিক্রমাঙ্কদেবচরিত গ্রন্থের রচয়িতা হল বিলহণ ।

 

প্রশ্ন:- প্রাচীন ভারতের লেখক বিলহণ তাঁর কোন রচনার জন্য খ্যাত  ?

উত্তর:- প্রাচীন ভারতের লেখক বিলহণ তাঁর বিক্রমাঙ্কদেবচরিত গ্রন্থ রচনার জন্য খ্যাত ।

 

প্রশ্ন:- মিতক্ষরা নামে হিন্দু আইনশাস্ত্রের রচয়িতা কে ?

উত্তর:- মিতক্ষরা নামে হিন্দু আইনশাস্ত্রের রচয়িতা হল বিজ্ঞানেশ্বর ।

 

প্রশ্ন:- বিক্রমশীলা মহাবিহার কার নাম অনুসারে প্রতিষ্ঠিত হয় ?

উত্তর:- বিক্রমশীল উপাধিধারী পাল রাজা ধর্মপালের নাম অনুসারে বিক্রমশীলা মহাবিহার প্রতিষ্ঠিত হয় ।

 

প্রশ্ন:- সন্ধ্যাকর নন্দী কে ছিলেন ?

উত্তর:- সন্ধ্যাকর নন্দী ছিলেন রামচরিত গ্রন্থের লেখক ।

 

প্রশ্ন:- পাল ও সেনযুগে বাংলার শ্রেষ্ঠ বন্দরের নাম কী ?

উত্তর:- পাল ও সেনযুগে বাংলার শ্রেষ্ঠ বন্দরের নাম ছিল তাম্রলিপ্ত ।

 

প্রশ্ন:- বাংলার কৌলিন্য প্রথার প্রবর্তন কে করেন ?

উত্তর:- সেনরাজা বল্লালসেন বাংলার কৌলিন্য প্রথার প্রবর্তন করেন ।

 

প্রশ্ন:- মহাবলীপুরমের রথ কী ?

উত্তর:- মহাবলীপুরমের রথ হল পল্লবযুগে মামল্ল শিল্পরীতি অনুসরণ করে একটি পাথর কেটে নির্মিত রথাকৃতি

মন্দির ।

 

প্রশ্ন:- দায়ভাগ কে রচনা করেন ?

উত্তর:- জীমুতবাহন দায়ভাগ রচনা করেন ।

 

প্রশ্ন:- প্রাচীন ভারতের কবি ভারবী তাঁর কোন রচনার জন্য খ্যাত ?

উত্তর:- কবি ভারবী তাঁর কিরাতার্জুনীয় গ্রন্থ রচনার জন্য খ্যাত ।

 

প্রশ্ন:- চরক কে ছিলেন ?

উত্তর:- চরক ছিলেন কুষাণ সম্রাট প্রথম কনিষ্কের ব্যক্তিগত চিকিৎসক ।

 

প্রশ্ন:- প্রাচীন ভারতের চিকিৎসাশাস্ত্র সংক্রান্ত প্রথম প্রামাণ্য গ্রন্থ কোনটি ?

উত্তর:- প্রাচীন ভারতের চিকিৎসাশাস্ত্র সংক্রান্ত প্রথম প্রামাণ্য গ্রন্থ হল চরক-সংহিতা ।

 

প্রশ্ন:- চরক-সংহিতা গ্রন্থের রচয়িতা কে ?

উত্তর:- চরক-সংহিতা গ্রন্থের রচয়িতা হল চরক

 

প্রশ্ন:- ধন্বন্তরী কে ছিলেন  ?

উত্তর:- ধন্বন্তরী ছিলেন গুপ্তযুগের একজন চিকিৎসাবিজ্ঞানী  ।

 

প্রশ্ন:-  অদ্বৈতবাদ কে প্রচার করেছিলেন  ?

উত্তর:- জগৎগুরু শঙ্করাচার্য অদ্বৈতবাদ প্রচার করেছিলেন   ।

 

প্রশ্ন:-  পালযুগের একটি বিখ্যাত বৌদ্ধ বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম কী ?

উত্তর:- পালযুগের একটি বিখ্যাত বৌদ্ধ বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় ।

 

প্রশ্ন:- গুপ্তযুগে দুজন শ্রেষ্ঠ বৈজ্ঞানিকের নাম কী  ?

উত্তর:- গুপ্তযুগে দুজন শ্রেষ্ঠ বৈজ্ঞানিকের নাম হল আর্যভট্টবরাহমিহির ।

 

প্রশ্ন:-  প্রাচীন ভারতের কোন গ্রন্থে সুর্য ও চন্দ্র গ্রহণের কারণের বিবরণ আছে ?

উত্তর:- সূর্য-সিদ্ধান্ত গ্রন্থে সুর্য ও চন্দ্র গ্রহণের কারণের বিবরণ আছে ।

 

প্রশ্ন:-  সূর্য-সিদ্ধান্ত গ্রন্থটি কার লেখা ?

উত্তর:- সূর্য-সিদ্ধান্ত গ্রন্থটি গুপ্তযুগের বিখ্যাত বিজ্ঞানী আর্যভট্টের লেখা  ।

 

প্রশ্ন:- বাণভট্ট কে ছিলেন ?

উত্তর:- চিকিৎসাশাস্ত্রে গুপ্তযুগে বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব ছিলেন বাণভট্ট –চিকিৎসাবিজ্ঞানে চরক ও সুশ্রুতের পরেই ছিল তাঁর স্থান

 

প্রশ্ন:- পশু চিকিৎসার ওপর গুপ্তযুগে লেখা দুটি গ্রন্থের নাম লেখো ?

উত্তর:- পশু চিকিৎসার ওপর গুপ্তযুগে লেখা দুটি গ্রন্থের নাম হল হস্তায়ুর্বেদ এবং অশ্বশাস্ত্র ।

*****