Madhyamik

নিরক্ষীয় জলবায়ু অঞ্চল

নিরক্ষরেখার উত্তর দিকে উত্তর ও দক্ষিণ অক্ষাংশের মধ্যে অবস্থিত সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়ায় নিরক্ষীয় জলবায়ু দেখা যায় ।

নিরক্ষীয় জলবায়ুর বৈশিষ্ট্য :-

(১) সারাবছর ধরেই অত্যধিক উত্তাপ ও বৃষ্টিপাত, অতিরিক্ত আর্দ্রতা এবং বার্ষিক তাপমাত্রার স্বল্প ব্যবধান হল এই অঞ্চলের জলবায়ুর প্রধান বৈশিষ্ট্য,

(২) এই অঞ্চলের গ্রীষ্মকালীন গড় তাপমাত্রা প্রায় ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস । আকাশে মেঘ না থাকলে কখনও কখনও ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস হয় । শীতকালীন তাপমাত্রা প্রায় ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস হয়, অর্থাৎ শীত ও গ্রীষ্মকালীন তাপমাত্রার পার্থক্য হয় মাত্র ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস,

এশিয়া মহাদেশের জলবায়ুর মূল বৈশিষ্ট্য

বিশালাকার আয়তন, অক্ষাংশের ব্যবধান, ভূপ্রকৃতি ও পর্বতের অবস্থান, বায়ু প্রবাহ, সমুদ্র স্রোত প্রভৃতির জন্য এশিয়া মহাদেশের জলবায়ুর এত বৈচিত্র্য পৃথিবীর অন্য কোন মহাদেশে পরিলক্ষিত হয় না । এশিয়া মহাদেশের জলবায়ুর মূল বৈশিষ্ট্য গুলি হল—

(১) অক্ষাংশের বিপুল ব্যবধানের জন্য এশিয়া মহাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে তাপমাত্রার বিরাট পার্থক্য দেখা যায় ।  গ্রীষ্মকালে মধ্য এশিয়ার গড় তাপমাত্রা ৩৫° সেলসিয়াস, দক্ষিণ এশিয়ার ২৭° সেলসিয়াস ও উত্তর এশিয়ার ২০° সেলসিয়াস থাকলেও উত্তর-পশ্চিম ভারত, আরব উপদ্বীপ প্রভৃতি এলাকায় সর্বাধিক উষ্ণতা ৫০° সেলসিয়াসে পৌঁছে যায় ।

এশিয়া মহাদেশের জলবায়ুর বৈচিত্র্যের কারণ

এশিয়া মহাদেশের মতো জলবায়ুর এত বৈচিত্র্য পৃথিবীর আর কোন মহাদেশে নেই । এশিয়া মহাদেশের জলবায়ুর এই বৈচিত্র্যের মুলে যেসব কারণ রয়েছে তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল—(১) অক্ষাংশের প্রভাব,  (২) ভু-প্রকৃতির প্রভাব, (৩) বায়ুপ্রবাহের প্রভাব, (৪) সমুদ্র থেকে দূরত্বের প্রভাব, (৫) সমুদ্র স্রোতের প্রভাব, (৬) সমুদ্র থেকে উচ্চতার প্রভাব ।

এশিয়ার অন্তর্বাহিনী নদীগুলির গতিপথ

এশিয়ার অন্তর্বাহিনী নদীগুলির গতিপথ :- যেসব নদীর প্রবাহ পথ কোন দেশ বা মহাদেশের মধ্যেই সীমাবদ্ধ অর্থাৎ যেসব নদী কোন দেশ বা মহাদেশের স্থল ভাগের বাহিরে কোনো সাগর বা জলভাগে না পড়ে সেই দেশ বা মহাদেশের স্থলভাগের মধ্যেই কোনো হ্রদ বা জলাশয়ে পতিত হয়, অথবা স্থলভাগেই বিলীন হয়ে যায়, সেইসব নদীকে অন্তর্বাহিনী নদী বলে । এশিয়া মহাদেশের কয়েকটি নদী মূল ভূভাগের মধ্যেই সীমাবদ্ধ, এরা কোনো কোনো ক্ষেত্রে মধ্যভাগের কোনো কোনো হ্রদে গিয়ে পড়েছে, কখনও বা আবার মাঝপথেই শুকিয়ে গিয়েছে- তাই এদের অন্তর্বাহিনী নদী বলা হয় ।

এশিয়ার পশ্চিম বাহিনী নদীগুলির গতিপথ

ভারতের নর্মদা ও তাপ্তি হল এশিয়ার অন্যতম পশ্চিমবাহিনী নদী ।

(১) নর্মদা নদী :- নর্মদা নদী মহাকাল পর্বতের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ অমরকণ্টক (১,০৫৭ মিটার) থেকে উৎপন্ন হয়ে মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র ও গুজরাটের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে গিয়ে বিন্ধ্য ও সাতপুরা পর্বতের সংকীর্ণ গিরিখাত অতিক্রম করে গুজরাটের ব্রোচের কাছে খাম্বাত উপসাগরে পড়েছে । নর্মদা নদীর দৈর্ঘ্য ১,৩১০ কিলোমিটার ।