National Youth Day - 12th January

Submitted by administrator on Thu, 01/11/2018 - 18:48

                                              স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিন - ১২ জানুয়ারী জাতীয় যুবদিবস

                                         Celebration of National Youth Day on 12th January,

                                              The Birth anniversary of Swami Vivekananda

                                            ১২ ই জানুয়ারী ২০১৮ স্বামী বিবেকানন্দের ১৫৬ তম জন্ম বার্ষিকী 

                                                         স্বামী বিবেকানন্দের জীবনপঞ্জি (সংক্ষিপ্ত)

    

Swami Vivekananda_1 দণ্ড কমণ্ডলু হাতে এক নবীন পরিব্রাজক চলেছেন ভারত পরিক্রমায় । ভারত-আত্মার যথার্থ স্বরূপ সন্ধানই সেই দৃপ্ত-চরিত্র সন্ন্যাসীর  অভিষ্ট । কিন্তু, কোন ভারতবর্ষকে তিনি প্রত্যক্ষ করলেন । কোথায় গেল ভারতের সেই শৌর্যবীর্যের অতীত গৌরব-ইতিহাস ? কোন অন্ধকারে নিমজ্জিত হলো সনাতন ভারতের এক উজ্জ্বল মানবপ্রেমের আদর্শ ?  ভারতের সর্বত্রই আজ সীমাহীন দারিদ্র, পরাধীনতার গাঢ় অন্ধকার, পরানুকরণ-মত্ততা, দাসসুলভ দুর্বলতা, অস্পৃশ্যতার রাহুগ্রাস । সন্ন্যাসীর অন্তরাত্মা কেঁদে উঠলো ।  কে এই সন্ন্যাসী, যিনি দরিদ্র মানুষের মধ্যেই ঈশ্বরের অস্তিত্ব অনুভব করলেন ?  কে এই তাপস-শ্রেষ্ঠ, যিনি জাতিকে উদ্বুদ্ধ করলেন উদার মানবিকতায় ?  উদ্জীবিত করলেন নবজীবনের অগ্নিমন্ত্রে ?  কে সেই মহাসাধক, যিনি বজ্রকন্ঠে ভারতবাসীকে শোনালেন, 'ভুলিও না, নীচ জাতি, মূর্খ, দরিদ্র, অজ্ঞ, মুচি, মেথর তোমার রক্ত, তোমার ভাই' ?  কার উদাত্ত বজ্র-ঘোষণা জাতির নিস্তরঙ্গ জীবনে আনল দুর্বার যৌবন তরঙ্গ ?  তিনি হলেন অমিত শক্তিধর, নবজাগরণ-মন্ত্র-উদগাতা. বীরেশ্বর বিবেকানন্দ ।

১৮৬৩ সালের ১২ জানুয়ারি, (১২৬৯ সালের ২৯ পৌষ), সোমবার) মকর সংক্রান্তির দিন সকাল ৬টা ৩৩ মিনিটে কলকাতার শিমুলিয়া পল্লিতে স্বামী বিবেকানন্দ জন্ম গ্রহন করেন । বিশ্বনাথ দত্ত ও ভুবনেশ্বরী দেবীর ষষ্ঠ সন্তান, তিন পুত্রের মধ্যে প্রথম । মধ্যম ও কনিষ্ঠ পুত্র : মহেন্দ্রনাথ দত্ত ও ভুপেন্দ্রনাথ দত্ত । পিতা বিশ্বনাথ দত্ত ছিলেন কলকাতা হাইকোর্টের বিশিষ্ট আইনজীবি ।  তিনি ছিলেন দানশীল এবং সামাজিক ও ধর্মীয় চিন্তার ক্ষেত্রে প্রগতিবাদী। তাঁর নামকরণ করা হয় নরেন্দ্রনাথ দত্ত । তাঁর ডাক নাম বিলে । জননী ভুবনেশ্বরী দেবী ছিলেন ধর্মপ্রাণা নারী । বহু কৃচ্ছ্রসাধন করে তিনি কাশীর বিশ্বেশ্বর শিবের নিকট পুত্রকামনা করেন । কথিত আছে, তিনি স্বপ্ন দেখেছিলেন শিব ধ্যান থেকে উঠে তাঁকে বলছেন যে তিনি তাঁর পুত্ররূপে জন্ম নেবেন ।  পিতার যুক্তিবাদী মন ও জননীর ধর্মীয় চেতনা স্বামী বিবেকানন্দের চিন্তা ও ব্যক্তিত্বকে গভীরভাবে প্রভাবিত করেছিল। প্রথম জীবনেই পাশ্চাত্য দর্শন ও বিজ্ঞানের সহিত তাঁর পরিচিতি ঘটেছিল। এই কারণে অকাট্য প্রমাণ ও ব্যবহারিক পরীক্ষা ছাড়া কোনো বক্তব্যই তিনি গ্রহণ করতেন না । অন্যদিকে অতি অল্পবয়সেই ধ্যান ও বৈরাগ্যের আধ্যাত্মিক আদর্শের প্রতি তাঁর মন আকৃষ্ট হয় ।

১৮৮১: জেনারেল এসেমব্লিজ ইনস্টিটিউশনে পড়ার সময় অধ্যাপক হেস্টির কাছে শ্রীরামকৃষ্ণের সমাধির বিষয়ে শুনলেন ।  নভেম্বর মাসে সুরেন মিত্রের বাড়িতে শ্রীরামকৃষ্ণের সঙ্গে প্রথম সাক্ষাৎ । ডিসেম্বর মাসে প্রথমবার দক্ষিনেশ্বরে গেলেন । তারপর দক্ষিনেশ্বরে যাতায়াত শুরু ।

১৮৮৪, ২৫ ফেব্রুয়ারী: রাতে হঠাৎ পিতার মৃত্যু । জীবন সংগ্রামের শুরু । আর্থিক সংকট ও আত্মীয়স্বজনের নিষ্ঠুরতা । শ্রীরামকৃষ্ণের নির্দেশে মা-কালীর কাছে প্রার্থনা করতে যাওয়া । তিন বার-ই তিনি প্রার্থনা করলেন । জ্ঞান-ভক্তি-বিবেক-বৈরাগ্য । অতঃপর শ্রীরামকৃষ্ণের আশ্বাস দান । মোটা ভাত কাপড়ের অভাব হবে না । এটর্নী অফিসে কাজ করে ও বই অনুবাদ করে সংসার যাত্রা নির্বাহ । পরে কিছুদিন মেট্রোপলিটান ইনস্টিটিউশনে চাঁপাতলা শাখায় হেডমাস্টারও হয়েছিলেন ।

১৮৮৫ : শ্রীরামকৃষ্ণের ক্যান্সার । চিকিৎসার সুবিধার জন্য প্রথমে তাঁকে শ্যামপুকুরে ও পরে কাশীপুরে আনা হয় ।

১৮৮৬, ১১ ফেব্রুয়ারী : নরেন্দ্রকে শ্রীরামকৃষ্ণ লোক শিক্ষার ’ চাপরাস’ দিলেন ।

১৮৮৬, ১৬ আগস্ট : শ্রীরামকৃষ্ণের মহাসমাধি  ।

১৮৮৬, ১৯ অক্টোবর  : প্রথম শ্রীরামকৃষ্ণ মঠ ‘বরানগর মঠে’র প্রতিষ্ঠা ।

১৮৮৬, ২৮ ডিসেম্বর : ক্রীসমাস ইভের রাতে আঁটপুরে গুরুভাইদের সঙ্গে সমবেতভাবে সন্ন্যাস গ্রহণের সংকল্প ।

১৮৮৭,  জানুয়ারী  : সন্ন্যাসগ্রহণ ।

১৮৮৭-১৮৯৩: বিভিন্ন দফায় ভারত-পরিক্রমা । এই ভারত-পরিক্রমা আসলে ভারত-আবিষ্কার -ভারতের শক্তি ও দুর্বলতা উভয়কেই নিজের চোখে দেখা । ভারতের শক্তি - ধর্ম ও ধর্মকেন্দ্রিক সংস্কৃতি; দুর্বলতা-দারিদ্র , অশিক্ষা , সাধারণ মানুষ ও নারীজাতিকে অবহেলা । ‘বিবেকানন্দ’ এর নির্মাণ সম্পূর্ণ হল এই ভারত - পরিক্রমার সঙ্গে সঙ্গে । ভগিনী নিবেদিতা বলেছেন : গুরু, শাস্ত্র ও মাতৃভূমি এই তিনটে মিলে বিবেকানন্দ তৈরী হয়েছেন ।

১৮৯৩, ৩১ মে : পেনিনসুলার জাহাজে ভারতত্যাগ  ।

২৫ জুলাই : কানাডার ভ্যাঙ্কুভারে ।

৩০ জুলাই : শিকাগো রাত সাড়ে দশটায় পৌঁছলেন ।

আগস্টে : ধর্মমহাসভায় যোগদানের অনিশ্চয়তা ও খরচ কমানোর জন্য বোস্টন যাত্রা ।

১৮৯৩, ৯ সেপ্টেম্বর : বোস্টন থেকে আবার শিকাগোয় । স্টেশনের প্যাকিং বাক্সে ( মতান্তরে মালগাড়িতে ) রাত্রিযাপন ।

১০ সেপ্টেম্বর : শিকাগোর পথে ভিক্ষায় ।

১১ সেপ্টেম্বর : ধর্মমহাসভায় প্রথম বক্তৃতা ।

১৯  সেপ্টেম্বর: ‘হিন্দুধর্ম’ বক্তৃতা ।

২৭ সেপ্টেম্বর ; শেষ বক্তৃতা ।

১৮৯৩-১৮৯৬ : আমেরিকা ও ইংল্যান্ডের বিভিন্ন স্থানে ভারতীয় ধর্ম ও সংস্কৃতি প্রচার । [ আমেরিকা থেকে দু-বার ইংল্যান্ডে গেছিলেন । প্রথমবার ৩ মাসের জন্য - ১৮৯৫-এর আগস্ট থেকে ১৯৯৫-এর নভেম্বর পর্যন্ত । এই সময়ে লন্ডনে মিস মার্গারেট নোবেল ( ভাগিনী নিবাদিতা ) প্রথম তাঁর সংস্পর্শে আসেন । দ্বিতীয়বার গেছিলেন ভারতে ফেরার আগে : ১৮৯৬-এর এপ্রিলের শেষ সপ্তাহ থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত - ৭ মাস । ]

১৮৯৬, ১৬ ডিসেম্বর : ভারতে প্রত্যাবর্তনের উদ্দেশ্যে লন্ডন ত্যাগ ।

২১,ডিসেম্বর : রোম

৩০ ডিসেম্বর : কলম্বোর পথে যাত্রা ।

১৮৯৭, ১৫ জানুয়ারী : কলম্বোয় ।

২৬ জানুয়ারী : মূল ভারত ভুখন্ডে (পাম্বান-এ) । ভারত জুড়ে অভুতপূর্ব উদ্দীপনা ।

২৭ জানুয়ারী : রামেশ্বর মন্দিরে ভাষণ : ‘Real Worship’ ।

৬ - ১৪ ফেব্রুয়ারী : মাদ্রাজে (চেন্নাইয়ে ) । গোটা মাদ্রাজ উত্তাল । খবরের কাগজে বর্ণনা । মাদ্রাজে এ যেন নতুন নবরাত্রি ।

১৯ ফেব্রুয়ারী : কলকাতায় ।  

৭ মার্চ  : দক্ষিনেশ্বরে শ্রীরামকৃষ্ণের জন্মতিথি উদযাপন ।

৮ মার্চ : স্বাস্থ্যোদ্ধারের জন্য দার্জিলিং-এ ।

১ মে : কলকাতায় বলরাম বসুর বাড়িতে রামকৃষ্ণ মিশন প্রতিষ্ঠা । ঐ সভাতেই শ্রীমা সারদাদেবীকে ’ সঙ্ঘজননী ’ রূপে স্বামীজির ঘোষনা ।

৬ মে : আলমোড়ার পথে যাত্রা ।  আট মাস ধরে আলমোড়া, বেরিলি লাহোর অমৃতসর ,রাওয়ালপিন্ডি, শ্রীনগর , জম্মু,শিয়ালকোট , আলোয়ার ,জয়পুর ,ক্ষেত্রী— এই সব স্থানে ভ্রমণ ও বক্তৃতা । রোমাঁ রোলাঁর মতে এ তাঁর দ্বিতীয়বার ভারতপরিক্রমা , এবার বিজয়ীর বেশে , ‘কুম্ভকর্ণে’র ঘুম ভাঙ্গাতে ।

১৮৯৮ , জানুয়ারী ৩য় সপ্তাহ : কলকাতায় ।

২৮ জানুয়ারী :  ভগিনী নিবেদিতার বিদেশ থেকে কলকাতায় আগমন ।

২৭ ফেরুয়ারী:  বালিতে পূর্ণচন্দ্র দাঁ-র ঠাকুর বাড়িতে রামকৃষ্ণ জন্মোৎসব পালিত ।

২৫ শে মার্চ :  নিবেদিতাকে ব্রহ্মচর্য দীক্ষা ও নিবেদিতার নাম প্রদান ।

৩০ শে মার্চ:  দার্জিলিং-এ । এপ্রিলে কলকাতায় প্লেগ । প্লেগ দমনের জন্য ৩ মে কলকাতায় ফিরে এলেন । তাঁর নির্দেশে নিবেদিতা ও সদানন্দের পরিচালনায় কলকাতায় রামকৃষ্ণ মিশনের প্লেগ-সেবা কাজ ।

১১  মে : নিবেদিত, স্বামী তুরিয়ানন্দ , স্বামী সদানন্দ, স্বামী স্বরূপানন্দ , মিস ম্যাক্লাউড , ওলি বুল.স্বামী নিরঞ্জনানন্দ প্রভৃতি সহ আলমোড়া, নৈনিতাল , কাশ্মীর ও অমরনাথ যাত্রা ।

২ আগস্ট : অমরনাথ দর্শন ।

১৮ অক্টোবর : কলকাতায় ফেরা ।

১৮৯৯ , ২০ জুন : দ্বিতীয়বার পাশ্চাত্য যাত্রা । ১৯ জুন বেলুড় মঠের সন্ন্যাসী-ব্রহ্মচারীদের উদ্দেশ্যে ‘সন্ন্যাসের আদর্শ ’ সম্বন্ধে উদ্দীপনাময়ী বক্তৃতা । বললেন : সন্ন্যাসের অর্থ মৃত্যুকে ভালোবাসা । মৃত্যুকে ভালোবাসার অর্থ মৃত্যুকে নিশ্চিত জেনে গোটা জীবনকে হাসিমুখে পরার্থে নিয়োজিত করা । রামকৃষ্ণ মিশনের সন্ন্যাসীকে একই সঙ্গে গভীর আদর্শপরায়ণ ও বাস্তববুদ্ধিসম্পন্ন হতে হবে । সে একই সঙ্গে ধ্যানে ও কর্মে কুশল হবে ।

৩১ জুলাই : লন্ডনে ।

আগস্টের প্রথম দিকে : উইম্বলডনে ।

১৭ আগস্ট : আমেরিকার পথে ।  

২৮ আগস্ট : নিউইয়র্কে । প্রায় এক বছর আমেরিকায় বাস । তারপর প্যারিস, ভিয়েনা, এথেন্স হয়ে কায়রো থেকে ভারত-যাত্রা ১৯০০-র ২৬ নভেম্বর ।

১৯০০, ৯ ডিসেম্বর : বেলুড় মঠে পৌঁছানো । ক্যাপ্টেন সেভিয়ারের মৃত্যু সংবাদ প্রাপ্তি ।

২৭ ডিসেম্বর : মিসেস সেভিয়ারকে সান্ত্বনা দিতে মায়াবতী যাত্রা ।

২৯ ডিসেম্বর : মায়াবতীর পথে কাঠগোদামে  ।

১৯০১ ,  ৩ জানুয়ারী : মায়াবতী ।

৫ জানুয়ারী : স্বামী স্বরূপানন্দের কাছে মায়াবতী আশ্রমের ভাবিষ্যৎ পরিকল্পনা বর্ণনা  । দু-সপ্তাহ মায়াবতীতে থেকে  ১৮ জানুয়ারী মায়াবতী ত্যাগ ।

২৪, জানুয়ারী : বেলুড় মঠে ।

১৮ মার্চ : সন্ন্যাসিশিষ্য সহ পূর্ববঙ্গ ও আসাম যাত্রা । ঢাকা জগন্নাথ কলেজে বক্তৃতা । পগোজ স্কুলের লাগোয়া মাঠে বক্তৃতা । দেওভোগে নাগ মহাশয়ের গৃহে ।

৫ এপ্রিল : চন্দ্রনাথ মন্দিরের পথে ঢাকা ত্যাগ । কামাখ্যা দর্শন । গৌহাটিতে তিনটি বক্তৃতা ।  শারীরিক অবস্থার অবনতি । শিলং -এ স্যার হেনরি কটনের সঙ্গে সাক্ষাৎ ও বক্তৃতা ।

১২ মে : বেলুড় মঠে উপস্থিতি , স্বাস্থ্যের ক্রমাবনতি ।  

৭ আগস্ট : দার্জিলিং যাত্রা । শেষ সপ্তাহে কলকাতায় প্রত্যাবর্তন । স্বাস্থ্যের কারণে জাপান যাওয়ার আমন্ত্রণ ত্যাগ ।

১৮ অক্টোবর : মঠে দূর্গাপূজা । শ্রীশ্রীমায়ের উপস্থিতি । সপ্তমীর দিন স্বামীজীর  জ্বর । অষ্টমীর দিন সুস্থ হয়ে মা-কে অঞ্জলিপ্রদান । নবমীর দিন রাত্রে ভক্তিমূলক সঙ্গীত পরিবেশন । এই সময়েই শরীরের দ্রুত অবনতি । মা ভুবনেশ্বরী দেবীর ইচ্ছা পূরণার্থে কালীঘাট গমন ।

২৩ ডিসেম্বর : কলকাতায় ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের অধিবেশন । এই সময় বাল গঙ্গাধর তিলক মঠে আসেন , স্বামীজী তাঁকে সাদরে গ্রহন করেন । মহাত্মা গান্ধীও এসেছিলেন - অনুপস্থিত থাকায় সাক্ষাৎ হয়নি ।

১৯০২ ,  ২৭ জানুয়ারী : ম্যাকলাউড ও ওকাকুরার সঙ্গে বুদ্ধগয়ায় গমন । সেখানে এক সপ্তাহ অবস্থানের পর ফেব্রুয়ারী মাসে শেষবারের মতো বারানসী গমন । সেখানে শরীরের ক্রমাবনতি ।

৮ মার্চ : বেলুড় মঠে প্রত্যাবর্তন ।

১১ মার্চ : শ্রীরামকৃষ্ণ জন্মোৎসব  ।  

১৬ মার্চ : শ্রীরামকৃষ্ণ জন্মতিথি উপলক্ষে সাধারণ উৎসব । অসুস্থতার জন্য স্বামীজী সারাদিন ঘর থেকে বের হাতে পারলেন না ।

১৯  জুন : ভুবনেশ্বরী দেবীকে দেখতে কলকাতা গমন ।

২৯  জুন : নিবেদিতার মঠে আগমন । সারাদিন নানা বিষয়ে আলোচনা ।

২ জুলাই : একাদশী তিথি । নিবেদিতার মঠে আগমন । তাঁকে স্বহস্তে আহার্য্য দান এবং স্বয়ং যীশুর মতো আহারান্তে হাত ধোয়ার জন্য জল দান ।

১৯০২ , ৪ জুলাই : সকালে গুরুভাইদের সঙ্গে চায়ের আসরে নানা গল্প ও পরদিন কালীপূজার নির্দেশ । আটটা থেকে এগারোটা পর্যন্ত ধ্যান । ধ্যানের পর শ্যামাসঙ্গীত : ’ মা কি আমার কালো রে … ।’ এরপর পায়চারি  করতে করতে স্বগতোক্তি : ” যদি আরেকটা বিবেকানন্দ থাকত তবে বুঝতে পারত , বিবেকানন্দ কি করে গেল । কালে কিন্তু এমন শত শত বিবেকানন্দ জন্মাবে । “  সকলের সঙ্গে মধ্যাহ্ণভোজন ।  দুপুরে তিন ঘন্টা ব্রহ্মচারীদের পড়ানো । বিকেলে স্বামী প্রেমানন্দের সঙ্গে ভ্রমণ ও ’ বেদবিদ্যালয়ের ’ পরিকল্পনা । সন্ধ্যারতির পরে এক ঘন্টা ধ্যান । রাত ৯ টা ১০ মিনিটে মহাসমাধি ।

***

Comments

Related Items

স্বামীজীর দ্বিতীয়বার পাশ্চাত্য ভ্রমণ

দ্বিতীয়বার পাশ্চাত্য ভ্রমণ:-

ভারতে প্রত্যাবর্তন এবং রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশন প্রতিষ্ঠা

ভারতে প্রত্যাবর্তন:-

কলম্বো থেকে আলমোড়া:

আমেরিকা ও ইংল্যান্ডে বক্তৃতাদান

আমেরিকা ও ইংল্যান্ডে বক্তৃতাদান:-