Physical Science

লোহা বা আয়রন [Iron]

Submitted by administrator on Mon, 04/08/2013 - 10:45
লোহা বা আয়রন: সংকেত— Fe পারমাণবিক সংখ্যা— 26 পারমাণবিক ভর— 55.85 যোজ্যতা— 2 এবং 3 ঘনত্ব —7.85 গ্রাম/সিসি গলনাঙ্ক— 1530°C স্ফুটনাঙ্ক —2450°C । আয়রনের প্রধান আকরিকগুলি হল : [i] ম্যাগনেটাইট (Magnetite) Fe3O4, [ii] রেড হেমাটাইট (Red Haematite) Fe2O3, [iii] আয়রন পাইরাইটিস (Iron Pyrites) FeS2 [iv] সিডারাইট (Siderite) FeCO3 । আয়রনকে প্রকৃতিতে মুক্ত অবস্থায় পাওয়া যায় না । পৃথিবীতে বিভিন্ন স্থানে প্রচুর পরিমাণে আয়রনের আকরিক পাওয়া যায় । ভারতের বিহার, পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িশা, কর্ণাটক ও অন্ধ্রপ্রদেশে লোহার আকরিক পাওয়া যায় । ভূ-ত্বকে আয়রনের পরিমাণ 4.12 শতাংশ ।

দস্তা বা জিঙ্ক [Zinc]

Submitted by administrator on Sun, 04/07/2013 - 19:19
দস্তা বা জিঙ্ক -এর সংকেত— Zn পারমাণবিক সংখ্যা— 30 পারমাণবিক ভর— 65.5 যোজ্যতা— 2 ঘনত্ব— 7.14 গ্রাম / সিসি গলনাঙ্ক— 419.5°C স্ফুটনাঙ্ক —907°C । জিঙ্ক ধাতুকে প্রকৃতির মধ্যে মুক্ত অবস্থায় পাওয়া যায় না জিঙ্কের প্রধান আকরিকগুলি জিঙ্কাইট (Zincite) ZnO, ক্যালামাইন (Calamine) ZnCO3, জিঙ্কব্লেন্ড (Zincblend) ZnS । জিঙ্কব্লেন্ড জিঙ্কের প্রধান আকরিক । ভারতের রাজস্থান, বিহার, পাঞ্জাব ও তামিলনাড়ুতে জিঙ্কব্লেন্ড পাওয়া যায় ।

ম্যাগনেসিয়াম [Magnesium]

Submitted by administrator on Sun, 04/07/2013 - 07:41
ম্যাগনেসিয়ামকে প্রকৃতির মধ্যে মুক্ত অবস্থায় পাওয়া যায় না । এর নানা রকম যৌগ প্রচুর পরিমাণে প্রকৃতিতে পাওয়া যায় । ম্যাগনেসিয়ামের সংকেত— Mg পারমাণবিক সংখ্যা— 12 পারমাণবিক ভর— 24.3 যোজ্যতা— 2 । এর প্রধান আকরিকগুলি হল :-[i] ম্যাগনেসাইট (Magnesite) MgCO3 , [ii] ডলোমাইট (Dolomite) MgCO3, CaCO3, [iii] কার্নালাইট (Carnallite) MgCl2, KCl, 6H2O ।

অ্যালুমিনিয়াম [Aluminium]

Submitted by administrator on Sat, 04/06/2013 - 11:46
অ্যালুমিনিয়াম ধাতুকে মুক্ত অবস্থায় প্রকৃতির মধ্যে পাওয়া যায় না । যৌগরূপে এই ধাতুকে প্রকৃতির মধ্যে প্রচুর পাওয়া যায় । ভু-পৃষ্ঠের সব ধাতুর মধ্যে অ্যালুমিনিয়ামের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি, প্রায় 7% — 8% । অ্যালুমিনিয়ামের সংকেত— Al পারমাণবিক সংখ্যা— 13 ভর— 26.98 যোজ্যতা— 3 ।

মেথিলেটেড ও রেকটিফায়েড স্পিরিট এবং ভিনিগার

Submitted by administrator on Fri, 04/05/2013 - 09:42
95% ইথাইল অ্যালকোহলের [CH3CH2OH] জলীয় দ্রবণকে রেকটিফায়েড স্পিরিট বলে । রেকটিফায়েড স্পিরিটকে পানের অযোগ্য করার জন্য রেকটিফায়েড স্পিরিটের সঙ্গে মিথাইল অ্যালকোহল 10%), সামান্য পিরিডিন (0.5%), ন্যাপথা এবং রবার নির্যাস কাওকোসিন মিশিয়ে বিষাক্ত করে দেওয়া হয় । এই বিষাক্ত মিশ্রণকে মেথিলেটেড স্পিরিট বলে । ইথাইল অ্যালকোহলের লঘু দ্রবণের আংশিক পাতন প্রক্রিয়া থেকে 95.6% গাঢ় ইথাইল অ্যালকোহল এবং 4.4% জলের মিশ্রণ পাওয়া যায় । এই মিশ্রণকে শোধিত অ্যালকোহল বা রেকটিফায়েড স্পিরিট বলে । এর রাসায়নিক সংকেত C2H5OH । ভিনিগার হল কার্বক্সিলিক অ্যাসিড জাতীয় যৌগ— অ্যাসেটিক অ্যাসিডের লঘু জলীয় দ্রবণ । এতে প্রায় 4% — 8% অ্যাসেটিক অ্যাসিড ও সামান্য অ্যালকোহল থাকে । এর রায়্নিক সংকেত CH3COOH ।

সাবান ও ডিটারজেন্ট

Submitted by administrator on Fri, 04/05/2013 - 09:14
সাবান হল উচ্চ আণবিক ওজন বিশিষ্ট জৈব ফ্যাটি অ্যাসিড (যেমন— ওলিক অ্যাসিড, স্টিয়ারিক অ্যাসিড, পামিটিক অ্যাসিড) -এর সোডিয়াম বা পটাশিয়াম লবণ । একাধিক জৈব অ্যাসিডের লবণ হওয়ায় সাবানের নির্দিষ্ট কোনো সংকেত নেই । এটি অনুদ্বায়ী কঠিন পদার্থ ও জলে দ্রাব্য । সাবানের জলীয় দ্রবণ ক্ষারীয় । জলে মিশে ফেনা উত্পন্ন করে । জামা-কাপড় পরিষ্কার করতে, দেহের ময়লা দূর করতে, রঞ্জন শিল্পে, জীবাণুনাশক হিসাবে (কার্বলিক সাবান, নিম সাবান ইত্যাদি) সাবান ব্যবহৃত হয় । ডিটারজেন্ট হল লবণ জাতীয় জৈব ও অজৈব পদার্থের মিশ্রণ । ডিটারজেন্টের গঠন অনেকটা সাবানের মত । এর অণুর একটি অংশ জলঅনুরাগী এবং অপরটি জলবিরাগী । এগুলি কয়লা ও পেট্রোলিয়ামের হাইড্রোকার্বন থেকে তৈরি হয় । হাইড্রোকার্বনের অংশটি জলবিরাগী এবং জলঅনুরাগী অংশটি সালফেট বা সালফোনেট দিয়ে গঠিত । এটি গন্ধহীন, বর্ণহীন অনুদ্বায়ী কঠিন পদার্থ ।

ইউরিয়া, ন্যাপথালিন ও কস্টিক সোডা

Submitted by administrator on Fri, 04/05/2013 - 08:58
1828 খ্রিস্টাব্দে জার্মান বিজ্ঞানী ফ্রেডরিক ভোলার অজৈব যৌগ অ্যামোনিয়াম সায়ানেট (NH4CNO) -কে উত্তপ্ত করে ইউরিয়া প্রস্তুত করেন । এর রাসায়নিক সংকেত CO(NH2)2 । ন্যাপথালিনের রাসায়নিক সংকেত C10H8 । এর গলনাঙ্ক 80°C এবং স্ফুটনাঙ্ক 218°C । কীটনাশকরূপে, থ্যালিক অ্যানহাইড্রাইড প্রস্তুতিতে, কাপড় ,সিল্ক কাগজ প্রভৃতির রং প্রস্তুতিতে, টেট্রালিন, ডেকালিন (দ্রাবক), প্রস্তুতিতে, পোকার হাত থেকে জামা-কাপড় রক্ষা করতে ও নীল প্রস্তুতিতে এটি ব্যবহৃত হয় । কস্টিক সোডার রাসায়নিক সংকেত NaOH ও সোডার গলনাঙ্ক 318°C । এটি CO2 শোষণ করে কার্বনেটে পরিণত হয়, জলীয় দ্রবণ পিচ্ছিল হয়, চামড়ায় ক্ষতের সৃষ্টি করে । সোডিয়াম ধাতু উত্পাদনে, সাবান, কাগজ, রং, কৃত্রিম রেশম তৈরিতে, পেট্রোলিয়াম শোধনে কস্টিক সোডা ব্যবহৃত হয় ।

অ্যামোনিয়াম সালফেট

Submitted by administrator on Thu, 04/04/2013 - 22:43
অ্যামোনিয়াম সালফেট হল একটি নাইট্রোজেন ঘটিত অজৈব রাসায়নিক সার । এর রাসায়নিক সংকেত (NH4)2SO4 । জলে ভাসমান বিচূর্ণ জিপসামের মধ্য দিয়ে NH3 এবং CO2 গ্যাস চালনা করলে কিংবা অ্যামোনিয়ার সঙ্গে H2SO4 -এর বিক্রিয়ায় অ্যামোনিয়াম সালফেট উত্পন্ন হয় ।

ব্লিচিং পাউডার ও কলিচুন

Submitted by administrator on Thu, 04/04/2013 - 10:22
ব্লিচিং পাউডারের রাসায়নিক নাম ক্যালসিয়াম ক্লোরো-হাইপোক্লোরাইট এবং এর রাসায়নিক সংকেত Ca(OCl)Cl । ব্লিচিং পাউডার সাদা, অনিয়তাকার এবং একটি অজৈব পদার্থ । কলিচুনের রাসায়নিক নাম ক্যালসিয়াম হাইড্রক্সাইড এবং রাসায়নিক সংকেত Ca(OH)2 । পাথুরে চুনের (CaO) সঙ্গে জল মিশিয়ে কলিচুন প্রস্তুত করা হয় । কলিচুন সাদা, গন্ধহীন, অনিয়তাকার একটি অজৈব কঠিন পদার্থ ।