History

ইংল্যান্ডের শিল্প বিপ্লবের কারণ ও তার ফলাফল

ইংল্যান্ডের শিল্প বিপ্লবের কারণ ও তার ফলাফল [Industrial Revolution in England and Its Effects] :-  ইংল্যান্ডে শিল্প বিপ্লব সংগঠিত হওয়ার নানাবিধ কারণের মধ্যে একটি বড়ো কারণ ছিল পুঁজির জোগান । এই পুঁজির অনেকটাই এসেছিল ঔপনিবেশিক ব্যবসাবাণিজ্য থেকে । ইংল্যান্ডে শিল্প বিপ্লবের ফলে দুটি সমস্যা দেখা দেয়—

(১) কাঁচামালের অভাব এবং

(২) উদবৃত্ত দ্রব্যসামগ্রী বিক্রয়ের জন্য বাজার ।

ইউরোপীয় ধনতন্ত্র ও ঔপনিবেশিক অর্থনীতি

ইউরোপীয় ধনতন্ত্র ও ঔপনিবেশিক অর্থনীতি [European Capitalism and Colonial Economy] :- ভারত ইতিহাসে ইংরেজ শাসনের তাৎপর্য অনুধাবন করতে হলে ধনতন্ত্র ও ঔপনিবেশিক অর্থনীতি সম্পর্কে একটা স্পষ্ট ধারণা থাকা দরকার ।  কারণ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির মানদণ্ড অচিরেই রাজদণ্ডে পরিণত হয়েছিল ।  আগে যেসব বহিরাগত জাতি ভারতে এসেছিল, তাদের সঙ্গে ইংরেজদের অনেক তফাত । আগেকার বহিরাগত মানুষ ভারতকেই মাতৃভূমিরূপে কালক্রমে বরণ করে নিয়েছিল ।  তাদের মাতৃভূমির সঙ্গে কোনো সম্পর্ক ছিল না । ইংরেজরা ভারতকে কোনো দিনই স্বদেশ বলে মনে করেনি । মাতৃভূমি ইংল্যান্ডের সঙ্গে তাদের ছিল নাড়ির টান । মাতৃভূমির স্বার্থে ভ

দেওয়ানি লাভ ও দেওয়ানি লাভের গুরুত্ব

দেওয়ানি লাভ [The Grant of Diwani] (১৭৬৫) :- বক্সারের যুদ্ধে ত্রিশক্তির পরাজয়ের পর প্রায় সমগ্র উত্তর ভারত জুড়ে ইংরেজদের নিরঙ্কুশ প্রাধান্য স্থাপনের সম্ভাবনা উজ্জ্বল হয়ে ওঠে । এই অবস্থায় ১৭৬৫ খ্রীষ্টাব্দের মে মাসে বাংলায় ক্লাইভের পুনরাগমন ঘটে । ১৭৬৫ খ্রিস্টাব্দের এলাহাবাদ চুক্তিতে ৫০ লক্ষ টাকার বিনিময়ে কারা ও এলাহাবাদ ছাড়া সমগ্র অযোধ্যা সুজা-উদ-দৌলাকে ফিরিয়ে দেওয়া হয় । ক্লাইভ শাহ আলমকেও দিল্লির সিংহাসন ফিরিয়ে দেন । ইংরেজদের প্রতি কৃতজ্ঞতার নিদর্শন স্বরূপ কারা ও এলাহাবাদের বিনিময়ে এবং বাৎসরিক ২৬ লক্ষ টাকার করদানের শর্তে সম্রাট ইংরেজদের বাংলা, বিহার ও ওড়িশার দেওয়ানির দায়ি

বক্সারের যুদ্ধ ও বক্সারের যুদ্ধের গুরুত্ব

বক্সারের যুদ্ধ [The Battle of Buxar] :- কাটোয়া, মুর্শিদাবাদ, গিরিয়া, সুটি, মুঙ্গের ও উদয়নালায় পরপর ছয়টি যুদ্ধে মিরকাশিম পরাজিত হন । এই অবস্থায় ১৭৬৩ খ্রিষ্টাব্দে মিরকাশিমকে সিংহাসনচ্যুত করে ইংরেজরা মিরজাফরকে আবার বাংলার মসনদে বসান । কিন্তু মিরকাশিম হাল না ছেড়ে মুঘল সম্রাট শাহ আলম ও অযোধ্যার নবাব সুজা-উদ-দৌলার সঙ্গে একযোগে ইংরেজদের মোকাবিলার জন্য বক্সারের প্রান্তরে মিলিত হন । ১৭৬৪ খ্রিস্টাব্দের ২২ শে অক্টোবর বক্সারের যুদ্ধে এই মিলিত বাহিনীর চূড়ান্ত পরাজয় ঘটল ।

মির কাশিম

মিরকাশিম [Mir Kasim]:- কোম্পানির প্রাপ্য অর্থ পরিশোধ এবং বর্ধমান, মেদিনীপুর, চট্টোগ্রামের জমিদারি প্রদানের প্রতিশ্রুতির বিনিময়ে মিরকাশিম বাংলার মসনদ লাভ করেন ।  ইংরেজদের সাহায্যে বাংলার মসনদ দখল করলেও তিনি ব্যক্তিত্বহীন পুরুষ ছিলেন না, বরং বাস্তববাদী ছিলেন । অহেতুক ইংরেজ বিরোধিতা তাঁর কাম্য ছিল না ।  তিনি সব সময়েই ইংরেজদের সাথে সদ্ভাব বজায় রাখতে চেয়েছিলেন । অনেকের মতে, তিনি  স্বাধীনচেতা পুরুষ ছিলেন এবং মিরজাফরের মতো ইংরেজদের আজ্ঞাবহ হয়ে থাকতে চাননি ।  তাই তাঁর সঙ্গে ইংরেজদের সংঘর্ষ হয়েছিল । এই ধরনের ব্যাখ্যা ভিত্তিহীন । আসলে তিনি ইংরেজদের সঙ্গে সব সময় বোঝাপড়ার রাস্তা খুলে রাখতেই চেয়েছিলেন

মিরজাফর

মিরজাফর [Mir Jafar]:- চক্রান্ত, শঠতা ও বিশ্বাসঘাতকতার পথ ধরে বাংলার মসনদ দখল করলেও মিরজাফর গোড়া থেকেই তাঁর অসহায় এবং অক্ষম অবস্থার কথা বুঝতে পেরেছিলেন । আভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক সমস্যার চাপে তিনি ইংরেজদের উপর নির্ভরশীল ছিলেন । তাঁর বিরুদ্ধে যে সব বিদ্রোহ হয়েছিল বা মুঘল সম্রাট শাহ আলম যখন বাংলা আক্রমণ করলেন, ইংরেজদের সাহায্যেই তিনি তা মোকাবিলা করতে সক্ষম হন ।  ইংরেজদের হাত থেকে বেরিয়ে আসবার মতো দৃঢ়তা বা ব্যক্তিত্ব তাঁর ছিল না । কাজেই ১৭৫৭ খ্রীষ্টাব্দ থকে ১৭৬০ খ্রীষ্টাব্দ পর্যন্ত তিনি নামে মাত্র নবাব ছিলেন ।  আসল ক্ষমতার চাবিকাঠি ছিল ইংরেজদের হাতে ।