Geography

ভারতের ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্প

ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্প বলতে বিদ্যুৎ, কৃষি ও শিল্পে ব্যবহৃত ছোট-বড়ো ও হালকা ও ভারী যন্ত্রপাতি ও যন্ত্রাংশ থেকে শুরু করে পরিবহণের যানবাহনসহ সমস্ত শিল্পকে বোঝায় । বিভিন্ন ধরনের সূক্ষ্ম ও ভারী যন্ত্রপাতি, রেল ইঞ্জিন ও ওয়াগন, জাহাজ, মোটরগাড়ি, মোটর সাইকেল ও স্কুটার, সাইকেল, ঘড়ি, পাখা প্রভৃতি ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্পের উদাহরণ ।   

যানবাহন শিল্প:  যানবাহন নির্মাণ শিল্প চার ভাগে বিভক্ত, যেমন, (ক) রেল ইঞ্জিন ও রেল বগি নির্মাণ শিল্প, (খ) মোটর গাড়ি নির্মাণ শিল্প, (গ) বিমানপোত (এরোপ্লেন) শিল্প এবং (ঘ) জাহাজ নির্মাণ শিল্প ।

লৌহ-ইস্পাত শিল্পের সমস্যা ও সম্ভবনা

ভারতীয় লৌহ ইস্পাত শিল্পের সমস্যা :-  ভারতের লৌহ ইস্পাত কারখানাগুলি প্রথম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা কালে স্থাপিত না হওয়ায় প্রচুর আর্থিক ক্ষতি ও বৈদেশিক মুদ্রার অপচয় হয়েছে । (১) পূর্ণ মাত্রায় উৎপাদন ক্ষমতা ব্যবহারের অভাব ; (২) কাঁচামালের মুল্যবৃদ্ধি ; (৩) ইস্পাত উৎপাদনের পুরোনো ও বাতিল হয়ে যাওয়া প্রযুক্তি ;  (৪) অত্যধিক সরকারি নিয়ন্ত্রণ ও ত্রুটিপূর্ণ সরকারি পরিকল্পনা ; (৫) লোহা, কয়লা, চুনাপাথর, ম্যাঙ্গানিজ প্রভৃতি কাঁচামালের কেন্দ্রীভূত অবস্থান; (৬) দক্ষ শ্রমিকের অভাব, (৭) উৎকৃষ্ট কোক কয়লার অভাব; (৮) তাপসহনক্ষম ইটের অভাব; (৯) পরিবহণের অসুবিধা; (১০) মেরামতির সাজ সরঞ্জামে

বোকারো ইস্পাত কারখানা

বোকারো ইস্পাত কারখানা [Bokaro Steel Plant] : ঝাড়খন্ড রাজ্যের দামোদর ও বোকারো নদীর সংগম স্থলের উত্তরে বোকারো নামক স্থানে সোভিয়েত রাশিয়ার সহায়তায় বোকারো ইস্পাত কারখানাটি স্থাপিত হয় । ১৯৬৪ সালের ২৯ শে জানুয়ারী এই কারখানটি লিমিটেড কোম্পানি হিসাবে অন্তর্ভুক্তি হয় ও পরে Steel Authority of India -র অন্যতম ইউনিট হিসাবে সংযুক্তি ঘটে ।    

ভিলাই ইস্পাত কারখানা

ভিলাই ইস্পাত কারখানা [Bhilai Steel Plant]:- নবগঠিত ছত্রিশ গড় রাজ্যের দুর্গ জেলার অন্তর্গত ভিলাই নামক স্থানে ভিলাই ইস্পাত কারখানাটি পূর্বতন সোভিয়েত যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতায় দ্বিতীয় পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা কালে স্থাপন করা হয় । ভিলাই ইস্পাত কারখানা থেকে প্রধানত ভারতীয় রেল পথের জন্য রেল লাইন সরবরাহ করা হয় ।

রাউরকেল্লা ইস্পাত কারখানা

রাউরকেল্লা ইস্পাত কারখানা [Rourkela Steel Plant] (RSP) :-  ওড়িশার সম্বলপুর জেলার ব্রাহ্মণী নদীর তীরে রাউরকেল্লা ইস্পাত কারখানাটি অবস্থিত। পশ্চিম জার্মানির ক্রুপস ও ডেমাগ কোম্পানি দ্বয়ের সহযোগিতায় ভারত সরকার ১৯৫৯ সালের ৩ রা ফেব্রুয়ারি এই ইস্পাত কারখানাটি প্রতিষ্ঠা করেন । পরবর্তীকালে রাউরকেল্লা ইস্পাত কারখানাটি স্টীল অথোরিটি অফ ইন্ডিয়ার (SAIL) একটি অন্যতম ইউনিট হিসাবে অধিগৃহীত হয় । ২০০২ সালে এই কারখানাটির উৎপাদন ক্ষমতা ছিল ১৯ লক্ষ মেট্রিক টন ইস্পাত পিণ্ড । বর্তমানেএই কারখানার আধুনিকীকরণের কাজ চলছে । 

দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানা

দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানা [DSP] : দ্বিতীয় পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনাকালে ইস্পাত শিল্পের উন্নতি ঘটানোর জন্য ইস্কন নামে একটি ব্রিটিশ কোম্পানির সাহায্যে কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্যোগে পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার দামোদর নদের তীরে দুর্গাপুরে ইস্পাত এই কারখানাটি প্রতিষ্ঠা করা হয় । ২০০২ সালে এই কারখানাটির উৎপাদন ক্ষমতা ছিল ১৮ লক্ষ মেট্রিক টন । শীঘ্রই এই কারখানাটির আধুনিকীকরণের মাধ্যমে উৎপাদন ক্ষমতা বাড়িয়ে ২৬ লক্ষ টনে পরিণত করা হয়েছে । ২০০১ সালে দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানাতে ১৪ লক্ষ ৩৩ হাজার টন ইস্পাত পিণ্ড উৎপাদিত হয়, এর মধ্যে “বিক্রয়যোগ্য” ইস্পাতের পরিমাণ ছিল ১৩