WB Class X

WBBSE class X study related contents

পর্ণমোচী বৃক্ষের বনভূমি

পর্ণমোচী বৃক্ষের বনভূমি [Deciduous woodland]:- ভারতের যেখানে বার্ষিক বৃষ্টিপাত ১০০ সেন্টিমিটার থেকে ২০০ সেন্টিমিটার, সেখানে পর্ণমোচী বৃক্ষের অরণ্য দেখা যায় । এই সব বৃক্ষ তার পাতাগুলি নির্দিষ্ট সময়ে মোচন করে অর্থাৎ পাতাগুলি ঝরে যায় আবার নতুন পাতা জন্মায় । শাল, সিমুল, সেগুন, জারুল, মহুয়া, পলাশ, শিরিস, বট, অশ্বত্থ, কুসুম, আম, কাঁঠাল প্রভৃতি পর্ণমোচী বৃক্ষের উদাহরণ । এদের মধ্যে কোনও কোনও গাছের ফল খাদ্য হিসাবে ব্যবহৃত হয় । উত্তরপ্রদেশ, বিহার, ওড়িশা, মধ্যপ্রদেশ, পশ্চিমঘাট পর্বতমালা প্রভৃতি অঞ্চলে পর্ণমোচী বৃক্ষের বনভুমি দেখা যায় ।

চিরহরিৎ বৃক্ষের বনভূমি

চিরহরিৎ বৃক্ষের বনভূমি [Evergreen Forest]:- ভারতের যে সমস্ত অঞ্চলে বার্ষিক বৃষ্টিপাত ২০০ সেন্টিমিটারের বেশি, সেখানে চিরহরিৎ বৃক্ষের বনভুমি দেখা যায় । অত্যাধিক বৃষ্টিপাতের জন্য এখানকার গাছপালা সারাবছরই সবুজ পাতায় ভরা থাকে । চিরহরিৎ শব্দের অর্থ হল চির সবুজ ।  শিশু, গর্জন, রোজউড, মেহগিনি, চাপলাস, বোগানোমা, নাহার, লোহাকাঠ ইত্যাদি প্রধান বৃক্ষ ছাড়া মাঝে মাঝে রবার, বাঁশআবলুস বৃক্ষও দেখা যায় । এসব কাঠ খুবই শক্ত ও ভারি । এগুলি গৃহনির্মাণ ও আসবাবপত্রের জন্য ব্যবহৃত হয় । পশ্চিম ঘাট ও পূর্ব ঘ

হিমালয়ের বনভূমি

হিমালয়ের বনভূমি [Himalayan Forest]:- হিমালয়ের বিভিন্ন উচ্চতায় বৃষ্টিপাত ও তাপমাত্রার পার্থক্যের জন্য বিভিন্ন ধরনের বনভূমি দেখতে পাওয়া যায় ।

(ক) পূর্ব হিমালয় অঞ্চলের পাদদেশ থেকে ১০০০ মিটার উচ্চতা পর্যন্ত শিশু, চাপলাস, মেহগনি, গর্জন, রোজউড প্রভৃতি শক্ত কাঠের চিরহরিৎ বনভূমি দেখা যায় । পশ্চিম হিমালয়ে এই বনভূমি দেখা যায় না ।

ভারতীয় কৃষিতে মৌসুমি বায়ুর প্রভাব

ভারতীয় কৃষিতে মৌসুমি বায়ুর বিরাট প্রভাব রয়েছে । মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে ভারতে প্রচুর পরিমাণে ধান, গম, পাট, আখ, তুলা বিভিন্ন ধরনের ডাল, নানান রকম তৈলবীজ, চা, কফি তামাক প্রভৃতি উৎপন্ন হয় ।

ভারতের মৌসুমি জলবায়ু

মৌসিম’ শব্দে এর অর্থ হল ঋতু । ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে মৌসুমি বায়ু প্রবাহেরও পরিবর্তন হয় । স্থলভাগ ও জলভাগের উত্তাপের পার্থক্যের ফলে সমুদ্র বায়ু এবং স্থল বায়ুর মতো মৌসুমি বায়ুরও সৃষ্টি হয় । ভারতের জলবায়ু ও বৃষ্টিপাতে মৌসুমি বায়ুর বিরাট প্রভাব পরিলক্ষিত হয় । এইজন্য ভারতকে মৌসুমি বায়ুর দেশ বলা হয় ।

ভারতের প্রধান ঋতু — শীতকাল

শীতকাল (Winter) :-

(১) শীত ঋতুটি ভারতে ডিসেম্বর মাসে শুরু হয়ে ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত স্থায়ী হয় ।

(২) এই সময় সমুদ্রের সমভাবাপন্ন প্রভাব থেকে বহুদূরে অবস্থিত উত্তর ভারতের সমভূমি অঞ্চলের পাঞ্জাব, রাজস্থান ও হিমালয় সন্নিহিত স্থানে তাপমাত্রা সবচেয়ে কম থাকায় সেখানকার বায়ুমণ্ডলে উচ্চচাপের সৃষ্টি হয় । অন্যদিকে, সমুদ্রের সমভাবাপন্ন জলবায়ুর প্রভাবে এবং নিরক্ষরেখার নিকটবর্তী হওয়ায় এই সময় দাক্ষিণাত্যের মালভূমি অঞ্চলে কিছুটা বেশি উষ্ণতা পরিলক্ষিত হয় ।