history book

প্রাচীন ভারতের বিজ্ঞান চর্চা

বিজ্ঞান:- প্রাচীন ভারতে বিজ্ঞান চর্চার ঐতিহ্য সর্বজন বিদিত । গণিত, জ্যোতির্বিদ্যা, চিকিৎসাশাস্ত্র, রসায়ন, পদার্থবিদ্যা প্রভৃতি শাস্ত্রে ভারতীয়দের অবদান সবিশেষ উল্লেখযোগ্য । গুপ্তযুগের আর্যভট্ট, বরাহমিহির, গর্গ, লাটদেব ও আর্যভট্টের শিষ্যগণ গণিত ও জ্যোতির্বিদ্যায় মৌলিক অবদান রেখেছিলেন । পৃথিবীর আহ্নিকগতি ও বার্ষিকগতির কথা আর্যভট্টের কাছ থেকে আমরা জানতে পারি । আর্যভট্টের লেখা ‘সুর্যসিদ্ধান্ত’ একটি উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ । বরাহমিহিরের ‘বৃহৎসংহিতা’‘পঞ্চসিদ্ধান্তিকা’ বিশেষভাবে

প্রাচীন ভারতের সাহিত্য

সাহিত্য:-প্রাচীন ভারতে সংস্কৃত ভাষায় সাহিত্যের স্বর্ণভান্ডার ছিল । এ ছাড়া পালি,প্রাকৃত,বাংলা,হিন্দি,তামিল প্রভৃতি ভাষাতেও উল্লেখযোগ্য সাহিত্য রচিত হয়েছিল ।

 

বিদেশি আগমন ও হিন্দু সমাজে গতিশীলতা

বিদেশি আগমন ও হিন্দু সমাজে গতিশীলতা মৌর্য সাম্রাজ্যের পতনের পর ভারতে ব্যাকট্রীয়, গ্রীক, শক, পহ্লব, কুষাণ ও আরও পরে হুন প্রভৃতি বিদেশি জাতির আগমনের ফলে ভারতীয় সমাজে তার প্রভাব পড়ে । এইসব বিদেশির মধ্যে অনেকেই ভারতে থেকে যান, বিবাহ করেন এবং ভারতীয় সমাজের অঙ্গীভুত হয়ে যান । শক, হুন দল ক্রমশ ভারতীয় আত্মায় মিশে হয়ে যায় । এদের মধ্যে অনেকেই পরে ভারতীয় নাম ও ধর্ম গ্রহন করেন । শকনেতা রুদ্রদামন বা কুষাণ রাজা বাসুদেব তার জ্বলন্ত প্রমাণ । এঁদের রাজধানীকে কেন্দ্র করে এক ধরনের মিশ্র সমাজ ও সংস্কৃতির উদ্ভব ঘটে । জাতিভেদ শাসিত ভারতীয় সমাজে এঁদের মিলন স