অভিব্যক্তির সংজ্ঞা ও ব্যাখ্যা

জৈব বিবর্তন বা অভিব্যক্তি [Evolution]:-

সুচনা [Introduction]:- ল্যাটিন শব্দ ‘Evolver’ থেকে Evolution কথাটির উত্পত্তি হয়েছে । আর Evolution কথাটির অর্থ ‘ক্রমবিকাশ’ । পৃথিবীতে প্রথম উত্পন্ন জীব ছিল এককোশী এবং সরল প্রকৃতির । ওই এককোশী সরল জীব থেকে ধারাবাহিক পরিবর্তনের  মাধ্যমে অপেক্ষাকৃত জটিল বহুকোশী জীবের সৃষ্টি হয় । এর পর যুগ যুগ ধরে ক্রমাগত পরিবর্তনের মাধ্যমে ধাপে ধাপে আধুনিক কালের জীবসমূহের উত্পত্তি হয়েছে । ধারাবাহিক পরিবর্তনের মাধ্যমে সরল জীব থেকে জটিল জীব সৃষ্টি হওয়ার এই পদ্ধতিই হল জৈব বিবর্তন বা জৈব অভিব্যক্তি । ইংরেজ দার্শনিক ও শিক্ষাবিদ হাবার্ট স্পেন্সারের [Herbert Spencer] মতে, কোনও সত্তার বিকাশ যখন মন্থর অথচ গতিশীল ও পর্যায়ক্রমিকভাবে ঘটে এবং নির্দিষ্ট সত্তা সরল অবস্থা থেকে জটিল অবস্থায় পরিণত হয়, তখন ওই রকম পরিবর্তনকে ‘ইভোলিউশন’ [Evolution] বা অভিব্যক্তি বলে ।

 

অভিব্যক্তির সংজ্ঞা:- যে মন্থর গতিশীল প্রক্রিয়ায় ধারাবাহিক পরিবর্তন ও ক্রমিক রুপান্তরের মাধ্যমে পূর্বপুরুষ অর্থাৎ সরল উদবংশীয়  জীব থেকে নতুন ও অপেক্ষাকৃত জটিল জীবের উদ্ভব এবং ক্রমবিকাশ ঘটে, তাকে জৈব অভিব্যক্তি বা জৈব বিবর্তন বলে

চার্লস ডারউইন অভিব্যক্তিকে “পরিবর্তনসহ বংশক্রম” বলে অভিহিত করেছেন ।

 

অভিব্যক্তির ব্যাখ্যা [Explanation of Evolution]:-

[ক]  জীব সৃষ্টির বিভিন্ন পর্যায় [Different Stages of Origin of Life]:- পৃথিবীতে জীব সৃষ্টি সম্পর্কে সাধারণ ধারনা হল :

 

[i]  সৃষ্টির শুরুতে পৃথিবী ছিল সূর্যের মতোই জ্বলন্ত বাষ্পের গোলক । পৃথিবী ক্রমশ শীতল হওয়ার ফলে কার্বন, হাইড্রোজেন, অক্সিজেন, নাইট্রোজেন ইত্যাদি উপাদানগুলি আবহাওয়া মন্ডলে মুক্তভাবে অবস্থান করতে থাকল ।

 

[ii]  পৃথিবী যখন আরও শীতল হাতে থাকল তখন ওই মৌলিক উপাদানগুলি থেকে সৃষ্টি হল জল, অ্যামোনিয়া, মিথেন ইত্যাদি যৌগ । এর পরবর্তী সময়ে জীব সৃষ্টির উপযোগী নানান যৌগ, যেমন : শর্করা, প্রোটিন, ফ্যাট, পলিস্যাকারাইড, নিউক্লিক অ্যাসিড প্রভৃতির সৃষ্টি হয় ।

 

[iii]  সৃষ্টির পরবর্তী ধাপে প্রোটিন ও নিউক্লিক অ্যাসিড মিলিত হয়ে নিউক্লিও প্রোটিন সৃষ্টি হয়, যা ছিল জীব সৃষ্টির প্রাথমিক উপাদান ।

 

[iv]  অনেকের মতে নিউক্লিও প্রোটিন থেকে প্রোটোভাইরাস এবং প্রোটোভাইরাস থেকে ভাইরাস সৃষ্টি হয়েছিল, ভাইরাস থেকে সৃষ্টি হয়েছিল ব্যাকটিরিয়া এবং  ব্যাকটিরিয়া থেকে প্রোটোজোয়া অর্থাৎ এক কোশী  জীব । এক কোশী জীব থেকে যে ধারাবাহিক পরিবর্তন ও ক্রমিক রুপান্তরের মাধ্যমে ধাপে ধাপে বহুকোশী উদ্ভিদ ও প্রাণীর সৃষ্টি হয়, এক কথায় সেই প্রক্রিয়াটিকে জৈব বিবর্তন বা অভিব্যক্তি  বলা যেতে পারে ।

পৃথিবীতে জীব সৃষ্টির পর্যায় গুলি :-

নিউক্লিও প্রোটিন

প্রোটোভাইরাস

ভাইরাস

ব্যাকটিরিয়া

প্রোটোজোয়া

——————————

বহুকোশী উদ্ভিদ বহুকোশী  প্রাণী

 

[খ]  ধারাবাহিক জটিলতা [Gradual Complexity]:-  সৃষ্টির প্রথম আদিম জীবটি ছিল এককোশী, সরল এবং অনুন্নত প্রকৃতির । এরপর ধারাবাহিক পরিবর্তন ও ক্রমিক রুপান্তরের মাধমে জীবের বিবর্তন দুটি ধারায় সম্পন্ন হতে থাকে । একদিকে উদ্ভিদরাজ্য এবং অপর দিকে প্রাণীরাজ্যের উদ্ভব হয় ।

 

[i] উদ্ভিদ রাজ্যের অভিব্যক্তি বা বিবর্তন:- উদ্ভিদ বিবর্তনের প্রথম পর্যায়ে সরল এককোশী উদ্ভিদের সৃষ্টি হয়েছিল । এরপর বহু কোশী সমাঙ্গদেহী উদ্ভিদের সৃষ্টি হয় । পরবর্তী সময়ে এরা ছত্রাক ও শৈবাল দুটি ধারায় বিভক্ত হয়ে পড়ে । এর পরে ধাপে ধাপে মসবর্গ, ফার্ণবর্গ, ব্যক্তবীজী ও গুপ্তবীজী উদ্ভিদের আবির্ভাব ঘটে ।

 

[ii] প্রাণী রাজ্যের অভিব্যক্তি বা বিবর্তন:- প্রাণী বিবর্তনের প্রথম ধাপে এককোশী প্রোটোজোয়া প্রাণীদের আবির্ভাব ঘটে । এককোশী প্রাণী থেকে ধাপে ধাপে ছিদ্রাল প্রাণী, একনালীদেহী প্রাণী, কৃমি জাতীয় প্রাণী, অঙ্গুরীমাল, সন্ধিপদ, কম্বোজ ও কন্টকত্বকী প্রাণীদের আবির্ভাব ঘটে । এরপর সৃষ্টি হয় কর্ডাটা পর্বভুক্ত প্রাণীদের । নিম্নশ্রেণির কর্ডাটা থেকে ধারাবাহিকভাবে মত্স্য, উভচর, সরীসৃপ, পক্ষী ও স্তন্যপায়ী প্রাণীদের আবির্ভাব ঘটে । অভিব্যক্তির ইতিহাসে মানুষের সৃষ্টি হয় একেবারে শেষ ধাপে

***