দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তর কালে শান্তির প্রয়াস

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তর কালে শান্তির প্রয়াস : ১৯১৮ খ্রিস্টাব্দের ১১ নভেম্বর প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শেষ হওয়ার ২০ বছর পর পৃথিবী আবার একটি ভয়ংকর বিশ্বযুদ্ধের মখোমুখি হয় । দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ প্রথম বিশ্বযুদ্ধ অপেক্ষা আরও ভয়াবহ ও ব্যাপক আকারে সংঘটিত হয়েছিল । প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর জার্মানির ওপর মিত্রপক্ষের অসম্মানজনক চুক্তির শর্ত আরোপ, জার্মানির প্রতিশোধস্পৃহা, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনায়কদের দায়িত্বজ্ঞানহীনতা, সাম্রাজ্যলিপ্সা এবং সমরসজ্জা পৃথিবীকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিয়েছিল । ১৯৩৯ খ্রিস্টাব্দের ১লা সেপ্টেম্বর হিটলার পোল্যান্ড আক্রমণ করলে জার্মানির প্রতি তোষণ নীতি ত্যাগ করে ইংল্যান্ড ও ফ্রান্স জার্মানির বিরুদ্ধে ১৯৩৯ খ্রিস্টাব্দের ৩রা সেপ্টেম্বর যুদ্ধ ঘোষণা করলে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয় । বিশ্বের তাবৎ শক্তিশালী রাষ্ট্রগুলি এক এক পক্ষ নিয়ে এই যুদ্ধে যোগদান করে । ১৯৩৯ খ্রিস্টাব্দ থেকে ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দ একটানা ছয় বছর ধরে এশিয়া, ইউরোপ ও আফ্রিকার দেশগুলিতে এই ভয়ংকর যুদ্ধচলে । মিত্রশক্তির কাছে জাপানের নিঃশর্ত আত্মসমর্পণের মাধ্যমে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অবসান হয় । ইটালি ও জার্মানি আগেই পরাজয় স্বীকার করেছিল ।  দীর্ঘ ছয় বছর ব্যাপী ব্যাপক ধ্বংসলীলা চলার পর পৃথিবীর শান্তিকামী মানুষ যুদ্ধের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করেছিল : ” আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তি চাই” । সর্বগ্রাসী বিধ্বংসী দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের নির্মম ধ্বংসযজ্ঞের বিভীষিকা বিশ্বমানবের অন্তরে যে হতাশা, আতঙ্ক ও অস্থিরতা সৃষ্টি করেছিল তার ফলেই তামাম বিশ্বের মানুষ শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য ব্যাকুল হয়ে ওঠেন । পৃথিবীর একদল রাষ্ট্রনেতাও উপলব্ধি করেন যুদ্ধ মানবিক সমস্যাগুলির যথার্থ সমাধান নয় । অতএব তাঁরা শান্তির সন্ধানে প্রয়াসী হন এবং এমন একটি বিশ্বরাষ্ট্র গঠনের স্বপ্ন দেখেন, যেখানে সকল জাতির মানুষ পারস্পরিক সৌভ্রাতৃত্ব ও সমতার ভিত্তিতে সুখে শান্তিতে বসবাস করতে পারেন । তাঁদের সেই স্বপ্ন সম্মিলিত জাতিপুঞ্জ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সার্থকতা লাভ করেছিল ।

***