এশিয়া ও আফ্রিকায় জাতীয় মুক্তি আন্দোলন

এশিয়া ও আফ্রিকায় জাতীয় মুক্তি আন্দোলন (National Liberation Movements in Asia and Africa):-  ভারতের পূর্বদিকে, চিনের দক্ষিণে এবং অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের উত্তরে যে ভুখন্ড তাই সাধারণত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া নামে পরিচিত । ইউরোপীয় দেশগুলি প্রাকৃতিক সম্পদের লোভে এবং বাণিজ্যের উদ্দেশ্যে এই দ্বীপগুলিতে এসে উপনীত হয় এবং নিজ নিজ উপনিবেশ গড়ে তোলে । দীর্ঘকাল ধরে এশিয়া ও আফ্রিকার বিভিন্ন অঞ্চলে ব্রিটেন, ফ্রান্স, পোর্তুগাল, নেদারল্যান্ডস প্রভৃতি ইউরোপীয় দেশগুলি ঔপনিবেশিক শাসন ও শোষণ চালিয়ে আসছিল । ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দে দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ শেষ হলে তার প্রতিক্রিয়া স্বরূপ দেশে দেশে ঔপনিবেশিক শাসনের অবসান হয় । নিম্নলিখিত কারণগুলির জন্য দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এশিয়া ও আফ্রিকা মহাদেশের বিভিন্ন দেশে জাতীয়তাবাদী আন্দোলন সাফল্য লাভ করে, যেমন:-

(১) দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ফলশ্রুতি:- দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্রিটেন, ফ্রান্স, পোর্তুগাল প্রভৃতি ঔপনিবেশিকতাবাদী দেশগুলির ব্যাপক লোকক্ষয়, আর্থিক মন্দা ও সামরিক শক্তি হ্রাস ছিল এশিয়া ও আফ্রিকায় ঔপনিবেশিকতা শাসনের পতনের অন্যতম প্রধান কারণ ।

(২) ক্রমবর্ধমান গণআন্দোলন:- রুশ বিপ্লবের সাফল্যের ফলশ্রুতিতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরবর্তীকালে এশিয়া ও আফ্রিকার বিভিন্ন পরাধীনদেশে উপনিবেশিকতার বিরুদ্ধে ক্রমবর্ধমান গণআন্দোলন ছিল এশিয়া ও আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে ঔপনিবেশিকতার পতনের দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ কারণ ।

(৩) আটলান্টিক চার্টারের প্রভাব:- দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় স্বাক্ষরিত আটলান্টিক চার্টারে বিভিন্ন উপনিবেশের জনগণকে স্বায়ত্তশাসন দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয় এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও পরাধীন জাতিগুলির ঔপনিবেশিক শৃঙ্খল থেকে মুক্তির দাবিকে জোরালো সমর্থন জানাতে থাকে । দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরবর্তী সময়ে সেই ‘প্রবল আর্থিক মন্দার যুগে’ মার্কিন সাহায্যের ওপর একান্তভাবে নির্ভরশীল ইউরোপীয় দেশগুলি (যেমন, ব্রিটেন, ফ্রান্স প্রভৃতি দেশ) মার্কিন ইচ্ছার কাছে নতিস্বীকার করা ছাড়া অন্য কোনও উপায় ছিল না । এটি ছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এশিয়া ও আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে ঔপনিবেশিকতার পতনের অন্যতম প্রধান কারণ ।

***