ভারতের ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্প

ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্প বলতে বিদ্যুৎ, কৃষি ও শিল্পে ব্যবহৃত ছোট-বড়ো ও হালকা ও ভারী যন্ত্রপাতি ও যন্ত্রাংশ থেকে শুরু করে পরিবহণের যানবাহনসহ সমস্ত শিল্পকে বোঝায় । বিভিন্ন ধরনের সূক্ষ্ম ও ভারী যন্ত্রপাতি, রেল ইঞ্জিন ও ওয়াগন, জাহাজ, মোটরগাড়ি, মোটর সাইকেল ও স্কুটার, সাইকেল, ঘড়ি, পাখা প্রভৃতি ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্পের উদাহরণ ।   

যানবাহন শিল্প:  যানবাহন নির্মাণ শিল্প চার ভাগে বিভক্ত, যেমন, (ক) রেল ইঞ্জিন ও রেল বগি নির্মাণ শিল্প, (খ) মোটর গাড়ি নির্মাণ শিল্প, (গ) বিমানপোত (এরোপ্লেন) শিল্প এবং (ঘ) জাহাজ নির্মাণ শিল্প ।

(ক) রেল ইঞ্জিন নির্মাণ শিল্প :- ১৯৪৩ সালে তৎকালীন বিহারের জামসেদপুরে টাটা ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড লোকোমোটিভ কোম্পানি ভারতের প্রথম রেল ইঞ্জিন তৈরি করে । বর্তমানেও এই বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে রেল ইঞ্জিন তৈরি করা হয় । বর্তমানে দুটো সরকারি সংস্থা ভারতের অধিকাংশ রেল ইঞ্জিন তৈরি করে, যথা:- (১) চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ ওয়ার্কস ও  (২) ডিজেল লোকোমোটিভ ওয়ার্কস, বারাণসী

(১) চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ ওয়ার্কস : পশ্চিমবঙ্গের চিত্তরঞ্জনে প্রতিষ্ঠিত এই রেল ইঞ্জিন কারখানায় আগে বাস্পীয় ইঞ্জিন তৈরি হত । ১৯৭১ সালের পর এখানে বাষ্পীয় ইঞ্জিন তৈরি  করা হয় না । বর্তমানে এই কারখানায় বৈদ্যুতিক এবং ডিজেল রেল ইঞ্জিন তৈরি হয় ।

(২) ডিজেল লোকোমোটিভ ওয়ার্কস, বারাণসী :- উত্তরপ্রদেশের বারাণসীতে অবস্থিত এই রেল ইঞ্জিন কারখানায় ডিজেল রেল ইঞ্জিন তৈরি হয় ।

রেল বগি নির্মাণ শিল্প :- (i) তামিলনাড়ুর পেরাম্বুরে অবস্থিত সরকারি সংস্থা ‘ইন্টিগ্রাল কোচ ফ্যাক্টরি’ তে ভারতের অধিকাংশ যাত্রিবাহী রেল বগি তৈরি হয় । এছাড়া (ii) কর্ণাটকের ব্যাঙ্গালোরে ‘ভারত আর্থ মুভারস’ এবং (iii) পশ্চিমবঙ্গের ‘জেপস অ্যান্ড কোং’ নামে দুটো সরকারি সংস্থায়ও মালগাড়ি ও যাত্রিবাহী গাড়ি তৈরি হয় । বেসরকারিভাবে পশ্চিমবঙ্গের টেক্সম্যাকো কোম্পানিতেও রেল বগি তৈরি হয় ।

(খ) মোটর গাড়ি নির্মাণ শিল্প:- ভারতে বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের মোটর গাড়ি, বাস, মিনিবাস, ট্রাক, জীপ, স্কুটার, মোটর সাইকেল প্রভৃতি তৈরি হয়, যথা: (১) কলকাতার কাছে হিন্দ মোটরে ‘হিন্দুস্থান মোটরস লিমিটেড’ এর কারখানা অ্যামবাসাডার ( পেট্রোল ও ডিজেল) ও কনটেসা গাড়ি এবং ট্রাক বাস, মিনিবাস তৈরি হয় । (২) মুম্বই শহরে “প্রিমিয়ার অটোমোবাইলস লিমিটেড” প্রিমিয়ার পদ্মিনী ( ফিয়াট - পেট্রোল ও ডিজেল) ও NE 118 গাড়ি এবং (৩) মাহিন্দ্রা অ্যান্ড মাহিন্দ্রা লিমিটেড জীপগাড়ি ও ছোট ট্রাক তৈরি করে ; (৪) তামিলনাড়ুর চেন্নাই এ “ অশোক লেল্যান্ড লিমিটেড” বৃহদায়তন ট্রাক ও বাস তৈরি করে । (৫) ঝাড়খন্ডের জামসেদপুরে অবস্থিত “ টাটা ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড লোকোমোটিভ কোং” (টেলকো) ভারতের বিখ্যাত ট্রাক ও বাস তৈরির প্রতিষ্ঠান ; সম্প্রতি টেলকো ডিজেল চালিত মোটর গাড়ি ও জীপগাড়িও তৈরি করছে; (৭) হরিয়ানার কেন্দ্রীয় সরকার ও জাপানের সুজুকি কোম্পানির যৌথ উদ্যোগে স্থাপিত মারুতি উদ্যোগে এ মারুতি ৮০০, জেন, অল্টো এস্টিম প্রভৃতি গাড়ি এবং জিপসি নামে দ্রুতগামি জীপ গাড়ি তৈরি হচ্ছে; (৮) এছাড়া বেসরকারি উদ্যোগে ইন্দো জাপান সহযোগিতায় উত্তরপ্রদেশের সুরজপুরে ( ডি.সি.এম. টয়টা লিমিটেড) হালকা ধরনের মালবাহি ট্রাক তৈরি হছে । (৯) উত্তরপ্রদেশের লখনৌ (স্কুটারস ইণ্ডিয়া লিমিটেড) (১০) কানপুর (লোহিয়া লিমিটেড) (১১) হরিয়ানার ফরিদাবাদ (১২) মহারাষ্ট্রের পুনে ( বাজাজ লিমিটেড) (১৩) কর্ণাটকের ব্যাঙ্গালোর এবং (১৪) সরকারি উদ্যোগে অন্ধ্রপ্রদেশে (পি.এল. ১৭০) এবং গুজরাটে (নর্মদা ১৫০) স্কুটার তৈরি হয় । ভারত সরকারের উদার আর্থিক নীতির সুবাদে বর্তমানে ভারতে অত্যাধুনিক বিদেশি প্রযুক্তির সাহায্যে হোন্ডা, ওপেল, ফোর্ড, সিয়েলো, ল্যান্সার, হোন্ডাই, মার্টিজ এমনকি মার্সেডিজ বেঞ্জ গাড়িও তৈরি হছে ।

***